প্রচ্ছদ প্রচ্ছদ

করোনা কাল ২ ( বাবার কাধে সন্তানের লাশ)বাবা !!!!…শেষ বিদায়… সন্তান করোনা আক্রান্ত তাতে কি..কবরে নামানোর আগে শেষ বারের মত কোলে তুলে নিলেন বাবা। মহামারি করোনার ভয় আর দাফন কর্মীদের বাধা কোন কিছুই আটকাতে পারেনি তাকে।

আমি তোমাদরেই লোক
বটি দা


বাপরে! আমাকে আবার কে খুঁজতে এলো! এ বাসায় দীর্ঘ এক বছর হয়ে গেল কোনদিন তো কেউ ডাকলো না।
বাসায় উঠবার সময় একটি চটের বস্তায় ভরে নিয়ে এসেছিলো। অনাদরে ছুড়ে ফেলে রেখেছিলো কিচেন কেবিনেটে।
তারপর মাঝে মধ্যে কেবিনেটের পাল্লা খুলতো বটে, কিন্তু আমার আর বের হওয়া হতো না। সেই থেকে বসে থেকে
থেকে শরীরে জং ধরে গেছে। আহা কতদিন বুক পেতে রূপালী মাছগুলোকে আলিঙ্গন করি না। আমি যার হাত
থেকে এসেছি এটা তার ছেলের বাসা। আমাকে কি যে যত্ন করতেন মানুষটা! মনে আছে কি সুন্দর তাঁর হাত দুটি।
আঙ্গুলগুলি কাঠটগর ফুলের পাপড়ির মতন -কোমল কিন্তু দৃঢ়। পুকুর বা বাজার থেকে বড় মাছ এলেই আমার ডাক
পড়তো। বেশ ভারী আর ধারালো বলে আমার খুব আদর ছিলো। কিন্তু এখানে তো – না না আজ বোধহয় শুভদিন!
আজ মনে হয় সত্যিই আমাকে কেউ মুক্ত করতে এসেছে! তবে কি সেই গ্রামের মা এসেছেন যিনি আমাকে ঘষে মেজে
ঝকঝকে তকতকে কর্মতৎপর করে তুলেছিলেন। … সত্যিই তো, এ তো সেই হাত! ইশ্! আমি এখন মুখ লুকাবো কোথায়?
আমার এই অবস্থা দেখলে মা তো মুর্ছা যাবেন। যা ভাবছিলাম – উনি আমার বুকে আঙ্গুল ঘষে দেখছেন।

doctor who i could help rose tyler with her homework queens university charlotte mfa creative writing uc davis creative writing program arguments for and against doing homework good words to use for creative writing rmit creative writing atar creative writing stress relief essay about how to help the environment what are the best essay writing services non residency mfa creative writing can alexa help you with your homework my homework helper lesson 6 time intervals blogs that feature creative writing business plan writing services vancouver bc can a research proposal be written in first person jobs for ba in creative writing creative writing winners can google help me with my homework newcastle creative writing need help writing term paper do your homework traduzione in inglese creative writing ocad good words to use in english creative writing uw seattle mfa creative writing creative writing halifax masters creative writing online uk best online creative writing masters uk powerpoint on creative writing creative writing msu traduzione di do your homework richmond theatre creative writing course do your homework properly change into interrogative negative sentence best creative writing graduate programs in the world difference between creative writing and writing for information university of alaska mfa creative writing uci creative writing emphasis prompt creative writing creative writing ingredients who can help build a business plan creative writing about helicopter doing homework traduzione in italiano when you don't want to do your homework advantages and disadvantages of doing homework essay creative writing workshops washington dc creative writing in urdu for grade 4 homework help 24/7 creative writing under the sea creative writing scenarios creative writing oxford university course term paper writers wanted how is application letter written write my dissertation online custom molds inc case study solution creative writing with word bank for grade 1 describing aliens creative writing creative writing st pete fl essay writing service for nursing what can i write my persuasive essay on is doing homework on sunday a sin business plan writers in houston texas chemistry homework help and answers creative writing workshops near me creative writing exercises for adults describing silence in creative writing if i do my homework i'll get good grades doing my homework en ingles ignou creative writing english study material essay on current law and order situation in pakistan paying someone to write your thesis description of a person creative writing creative writing gcse paper hire dissertation writer uk good creative writing titles help with my homework online traducir did you do your homework phd dissertation writing services reviews essay writing service uae creative writing for grade 3 in urdu argumentative essay on louisiana purchase help with homework english essentials agricultural research proposal writing creative writing course sydney university primary homework help co uk france new york university mfa creative writing when do your homework creative writing for secondary students creative writing syllabus mumbai university remote creative writing jobs canada help me build a cover letter how does critical thinking affect you as a writer my birthday creative writing how does doing homework help you o que significa em ingles do my homework creative writing in urdu for grade 3 creative writing jurong west story openers for creative writing ubc mfa creative writing application how to stop getting distracted when doing homework mfa programs creative writing fully funded cpm homework help cc3 chapter 4 creative writing on flowers for grade 1 university of arizona tucson mfa creative writing creative writing lesson plans for 7th grade will writing service southport resume writing service brisbane doing a literature review releasing the social science research imagination by chris hart show me a written business plan doing homework in the library beginner creative writing jobs using passive voice in creative writing case study cement for sale creative writing love stories apps to help keep track of homework phd thesis help get an essay written ghost essay writers merit pay for teachers essay creative writing about bubbles write my essay sites certified federal resume writing service nyu mfa creative writing apply informative essay about recycling and how it can help the environment thesis bike for sale mfa creative writing programs ranked creative writing emerson georgia state creative writing spitball homework help resume cover letter grant writer corona public library homework help u of s creative writing civil engineering dissertation help best resume writing service essay rewriter generator robot essay writer research about creative writing are dissertation writing services legal bespoke essay writing services epic homework help login nyu creative writing mfa funding doing essay night before creative writing alphabets essay writer us help on essay writing marquette university creative writing please help me do my homework university of utah creative writing minor good for creative writing do my autocad homework creative writing prompts new york times make money doing people's homework can an analytical essay be written in first person creative writing groups oxford how to earn through creative writing creative writing cape town volcano facts primary homework help creative writing rainy day another term for creative writing creative writing department stanford if you do your homework last night uh creative writing university of north texas creative writing phd creative writing jobs in south africa cheap write my essay will writing service stoke on trent creative writing on deforestation ma creative writing queens belfast creative writing course open university does homework help you get smarter do my architecture homework marking criteria for creative writing significado en ingles i do my homework creative writing svenska creative writing prompt tumblr separates creative writing from formal cactus primary homework help order of argumentative essay time you spend doing homework bordered pages for creative writing fake essay writing service digestive creative writing average gre scores creative writing mfa best low residency creative writing mfa uc berkeley english creative writing application letter for purchase officer quick writing service access homework assignment help stacks homework help top 10 mfa creative writing programs university of delaware creative writing i have to do my homework every day creative writing for students and teachers maley pathtoexcel homework help homework written in different fonts online part time creative writing jobs help you do homework good vocabulary words to use in creative writing thesis writing sites mfa creative writing rankings pa personal statement editing creative writing technology creative writing test - non-fiction (u.s. version) upwork answers www resume writing service com google help me homework nyu paris creative writing research proposal online shopping victorian workhouses homework help describing hands creative writing creative writing heartbeat cheapest essay writing service review worst essay ever written importance of doing research paper creative writing what ways do i help my family grad cafe creative writing admission results best creative writing platforms water bottle creative writing critical thinking helps us to do all of the following except write my research paper for me reviews help with essay writing for university bespoke cv writing service fisher price case study doing a literature review in health and social care 4th edition orange county library homework help creative writing hungry caterpillar creative writing piano miss mel creative writing graveyard description creative writing advanced creative writing open university oxbridge writing service brave writer essay prep creative writing descriptive phrases smile description creative writing how creative writing is different from journalistic writing paralegal homework help thesis helpers reviews president's fund for creative writing research essay writing service how to make a creative writing blog doing homework in class homework helpers twin falls idaho level 9 english language creative writing essay writing service university creative writing distance course miguel is doing a research paper on new york city's stonewall riots of 1969 apex learning creative writing creative writing projects ks2 how can i do creative writing pay someone for cover letter creative writing about a time machine creative writing clubs creative writing upenn major creative writing description of a church how can i remember to do my homework creative writing job prospects how to help your child do homework help building a cover letter creative writing jobs in wisconsin addition homework helper creative writing about the darkness creative writing portfolio title page nth term homework help good thesis statement maker private creative writing tutor mfa creative writing new zealand online creative writing mfa cover letter personal statement help i could help rose tyler with her homework creative writing revision ks3 did you do your homework two days ago creative writing sac what does creative writing entail creative writing oakville creative writing at brown university creative writing worksheet for grade 1 wordpress business plan price creative writing about compassion cnn underscored creative writing creative writing exercises for adults sacramento library homework help nyu creative writing mfa low residency motivate myself to do my homework write my essay for me app put the essay parts in the correct order creative writing a level twinkl creative writing task creative writing philippines i can't write my research paper cheap personal statement writers good creative writing pieces creative writing bibliography ubc creative writing application creative writing short stories online creative writing english grammar where can i get help with a business plan southern illinois university creative writing help me type my essay creative writing prompts for groups someone who can do my essay do homework help students learn how technology helps critical thinking creative writing sqa do homework help students learn vermont creative writing the ascent creative writing best essay writing service canada creative writing smiling is doing homework slavery que significa i do my homework resume writing service austin texas steps involved in research proposal writing creative writing building character portland state university creative writing recommended will writing service creative writing course vanderbilt university higher order thinking skills thesis pharmacist resume writing service i do my homework past continuous homework help hotline nursing essay writers university of south wales creative writing bachelor of communication creative writing uts creative writing ocad simple creative writing worksheets bbc homework help history creative writing teacher job description creative writing description of a bully i need help with statistics homework creative writing on what i want to be when i grow up creative writing recruitment creative writing work from home jobs difference between technical writing and creative writing best website for personal statement north carolina creative writing programs what can you do with mfa in creative writing article writing service providers meaning of creative writing in bengali paid creative writing internships creative writing meetups ks4 english creative writing person doing homework put the essay parts in the correct order in the outline spaces provided nyu english creative writing track breasts creative writing geometry homework helper creative writing writing challenges mind maps for creative writing costume maker cover letter fear to inspire creative writing animation doing homework youtube creative writing prompts how to say i must do my homework in french custom writing on shoes creative writing curriculum map illinois state creative writing essay writing website reddit mfa creative writing programs online creative writing ma lancaster primary homework help co uk victorians workhouses professional thesis editing wsl will writing service reviews doing homework foto homework helper questions primary homework help 5 pillars of islam creative writing camp in toronto creative writing wayne state wine creative writing creative writing with word bank ready made graduation speech creative writing about your name good jobs with creative writing top ten creative writing mfa programs resume writing service walnut creek ca same day essay writing service essay better writer doing your homework traduccion consent order cover letter que veut dire doing your homework creative writing activity for grade 1 impulse purchase research paper torrance library homework help roman slaves primary homework help new york homework help creative writing framework university of illinois chicago creative writing phd who invented creative writing models of creative writing college algebra homework help job opportunities mfa creative writing universities with graduate programs in creative writing creative writing mountains monash uni creative writing creative writing jobs sacramento guardian university guide creative writing what can you write your college essay about creative writing sunderland dark room creative writing motivated in creative writing creative writing on holiday essay pa school personal statement help how to earn with creative writing ocsa creative writing audition term paper of rizal life works and writings best places to do your homework creative writing personal stories best resume writing service near me creative writing for nursery another word to mean creative writing can you write a doctoral thesis your creative writing is cheap write my essay pay someone to write essay uk my high school writing experience essay princess doing homework essay on bride price universities for creative writing uk creative writing piece about the sun creative writing on magic show the making of a story a norton guide to creative writing epub creative writing north wales resume writing service living social creative writing minor utm go home lock your door do your homework watch naruto jack the ripper creative writing qut fine arts creative writing pay for research paper writing create essay for me rstudio homework help contrast creative writing essay better writer it support help desk cover letter creative writing on eid ul adha description of travel creative writing creative writing program paris who has the best resume writing service environment group creative writing creative writing on 14 august thesis creator online new year celebration creative writing level 9 english language creative writing creative writing the crash mississippi state university creative writing fully funded creative writing phd worried description creative writing how to help homeless essay creative writing for non-native english speakers creative writing tenure track jobs 7 steps to a perfectly written business plan peppa pig doing homework annotated bibliography creator mla university of michigan creative writing major how argumentative essay is written creative writing online course oxford essay website for students case study of self help group in assam best resume writing service in uae rice university creative writing job creative writing narrative graduate school essay writers ccny mfa creative writing acceptance rate how to end a creative writing how to make a creative writing paper vanderbilt creative writing major michigan creative writing faculty creative writing description of a cemetery what to do when your bored doing homework do my sociology homework eyes description creative writing 7th grade homework help how does critical thinking help us in reading price research paper edinburgh university creative writing phd creative writing worksheets for primary 1 vampire description creative writing starter activity for creative writing help writing a research paper new york university masters in creative writing creative writing while high sentence starters creative writing creative writing bursaries agony creative writing just do your homework meaning what are the techniques in creative writing creative writing short stories gcse course outline of creative writing cv writing service hr words help to write an essay doing a literature review in business and management denyer will writing service chelmsford creative writing facts primary homework help river thames website that can help with homework anglo saxon jobs primary homework help creative writing ust ghostwriters for thesis brunel university creative writing staff slippery rock creative writing techniques in creative writing creative writing description of touch bachelor thesis writing service price discrimination dissertation advantage essay helpবউমা বউমা...শিল কোথায়?
শিল কি মা?
শিল চিন না? কেন তোমাদের দ্যাশে কি বলে? আরে শিল চিনলে না! শিল পাটা - যেটাতে মসলা পেষা হয়!
ও.. কিন্তু আমার তো নাই। সব তো ব্লেন্ডারে করা হয়
কেন, আমি তো নিজে হাতে তোমারে দিছি, আগের বাসায় তো ছিলো 
ছিলো বোধহয়! কিন্তু কোনদিন লাগেনি। ফ্লাট কেনার পর অপ্রয়োজনীও সব ফেলে দিয়েছিলাম। কেন শিল কি করবেন? 
আপনি না মাছ কাটবেন। বটি পাননি? 
পাইছি তো, কিন্তু অনেকদিন পইড়া থাইকা ধার নষ্ট হয়া গেছে। শিল থাকলে ধার দেয়া যাইতো!
মানে কি! এখন কি হবে মা? শিল ছাড়া মাছ কাটা যাবে না? আপনার কথায় আমি এতোগুলো টাকার মাছ কিনে 
আনলাম । এই মাছ এখন আমি কি করবো! আমি তো ছুড়ি দিয়ে মাছ কাটতে পারবো না!
তুমি অত অস্থির হইয়ো না। আমি ..
অস্থির হবো না মা! এখানে কত টাকার মাছ জানেন?  দশ হাজার টাকার। দশ হাজার টাকা! নট আ জোক! এখন এই মাছ
আমি আবার বাজারে নিয়ে যাবো কাটতে?
বাজারে নিবা ক্যান? আমিই কাটমু। তুমি যাও তো আমি কোন একটা উপায় করতেছি।
আমি কিচ্ছু জানি না আমার মাথা নষ্ট লাগছে!

হায় হায় যা একটু পুনরজ্জ্বিীবন পেতে যাচ্ছিলাম তাও বোধহয় আর হলো না। ছেলের বউ দেখি খুব ভালো একসাথে কত্ত 
মাছ কিনেছে! কিন্তু আমার কি লাভ! মা তো বোধহয় নতুন বটি আনতে গেলেন। ইশ্ একটা শিল যদি জোগাড় করতে পারতেন!
গ্রামের মানুষ তো খুব সহজেই আলাপ জমাতে পারে। পাশের বাসা থেকে যদি আনতো একটা ধার চেয়ে। যান না মা...
ওমা মা আমার কথা শুনতে পেলেন নাকি! মা তো সত্যিই দরজা খুলে ফ্ল্যাটের বাইরে যাচ্ছেন!
পড়শি কি মাকে শিল দেবেন? ওদের ওি যদি শিল-পাটা না থাকে? আমার বুক ধুঁকপুক করছে! 

ঐ যে পায়ের শব্দ পাচ্ছি... মা ফিরে আসছেন...  ঐ তো হাতে একখানা শিল! আহা আজ বড় আনন্দের দিন! 
মা আমাকে খুব আদর করে ধরে সিঙ্কে রাখলেন।  সেই মমতায় ভরা সুন্দর হাত দুটি।  ট্যাপ থেকে জল পড়ছে। কি শিতল।
জানি একটু পরেই শুরু হবে শিল দিয়ে কঠিন ঘর্ষণ পর্ব। জানি খুব কষ্ট হবে। তাতে কি! কষ্ট ছাড়া কি কেষ্ট মেলে? 

চারপাশে স্তুপ করে রাখা মাছগুলো দেখে আমার আর তর সইছিলো না। কোনটা রেখে কোনটা কাটবো! সবই নির্ভর করবে 
অবশ্য মায়ের পছন্দের উপর। তবে সম্ভবত ছোট মাছগুলি যেমন- মলা পাবদা বাতাশী সবার আগে কাটবেন। কারণ এগুলো তাড়াতাড়ি 
নরম হয়ে যায়। কই মাছ, চিংড়ি মাছও আকারে ছোট কিন্তু এগুলো দীর্ঘক্ষণ ফেলে রাখা যায়। 
আঃ! মা হাতে নিয়েছেন ডিম ভরা বড় বড় গোলসা মাছ। মশাই সাইজে ছোট কিন্তু কাটা শক্ত। অবশ্য আমার কাছে তা কিছুই না!

কলিংবেল বেজে ওঠে। মার বোধহয় আনন্দে হাত থেমে যায়। ছেলে এসেছেন। আবাির বেল বাঝে। মা উসখুস করেন অবশষেে গলা বাড়িয়ে বউমাকে ডাকেন। 
বউমা দরজাটা খুলে দাও। খোকা এসছে। আমার হাত তো ময়লা..
এই রে সব মাছ না কেটেই বুঝি মা উঠে পড়েন! অবশ্য বাকি আর তেমন কিছু নাই। চিংড়ি আর কই।
খট করে শব্দ হলো মনে হচ্ছে বউমা দরজা খুলেছেন।
মা কোথায়? ছেলের কন্ঠ শোনা যায়।
যা ভেবেছিলাম! ছেলে এসইে প্রথমে মায়ের কথা খোঁজ করবে। বাকি মাছগুলো মা এখন কি আর কাটবেন?
এই সেরেছে ছেলেতো দখেি রান্নাঘরের দরজায় চলে এসেছেন!
মা! মা! তুমি রান্নাঘরে কি কর?
এই যে বাবা, একটু কয়ডা মাছ কাটি! যাও তুমি কাপড় বদলাও।
সেটাই তো আগে তুমি ফ্রেশ হও! চল। বউমা হাত ধরে টেনে নিয়ে যায় ছেলেকে।
কিন্তু এটা আপনি কি বললেন মা? কি বললেন আপনি এটা! এটা কোন কথা হলো, আমি আপনার সাথে এত এত মাছ কাটলাম আর আপনি বলছেন ‘একটু’ ‘কয়ডা’ এটা ঠিক না মা!মাত্র একবার ধার দিয়েই আমি আপনাকে পাহাড় সমান মাছ কেটে দিলাম। তার কোন প্রশংসা তো করলেনই না, নামটা পযর্ন্ত জাহির করলেন না। খুব কষ্ট পেলাম মা।
উঁড়ি মা পা তো আর নড়াতে পারি না! মা কঁকিয়ে ওঠেন। - এইবার আমার হাসি পায়। কেমন মা আপনি না ‘একটু’ ‘কয়ডা’ মাছ কেটেছেন। তাহলে পা ব্যাথা হয় কিভাবে?
শোবার ঘর থেকে ছেলের উচ্চস্বর শোনা যাচ্ছে। কিছু হচ্ছে না কি ওখানে... 
মায়ের এত এত মাছ কাটা দেখে ছেলের মুখ তখন লাল হয়ে গেছিল, সে আমার চোখ এড়ায় নাই! সত্যি বলতে কি ছেলে মাকে আর মাছ কাটতে বারণ করবে কি না ভেবে আমি ভয় পাচ্ছিলাম। আমার ভাবনাই তো মনে হচ্ছে সত্যি হল। কেন রে বাবা মা কত খুশি হয়ে মাছগুলি কাটছেন...
ওমা ছেলে তো ওদিকে তুফান তুলে দিয়েছেন! মা’র হাত তো আর চলছে না... 


কি আর্শ্চয্য তুমি চিৎকার করছো কেন? বউ না বোঝার ভান করে।
আমি চিৎকার করছি তুমি শুনতে পাচ্ছ? তাহলে আশা করি তোমার সকল ইন্দ্রিয় ঠিক আছে, তুমি দেখতেও পাও। তাহলে কেন দেখতে পারছো না মাকে মাছ না পাহাড় কাটতে দিয়েছো তুমি!
কি অদ্ভুত! মা‘ই তো শখ করে মাছগুলো কাটতে চাইলেন!
এতগুলো মাছ বাসায় আসলো কিভাবে?
ই. ইয়ে তোমার মা বলছিলেন ছোটবেলায় তুমি কেমন মাছের পাগল ছিলে। তোমাকে সবাই বেড়াল ডাকতো ইত্যাদি। তো আমি আবার মামাণির সাথে গতকাল ফোনে কথা বলবার সময় কথায় কথায় বলেছি তোমার মাছ-বেড়ালের কথা। তো মা আজ দুপুরে শৈবালকে দিয়ে পাঠিয়ে দিয়েছেন।
বুঝলাম। কিন্তু মা মাছ কাটছেন কেন?
মা.. মা’ই তো আমাকে বললেন উনি নিজে হাতে কেটে রেঁধে তোমাকে খাওয়াবেন
মা কিভাবে জানলেন মামণি মাছ পাঠাবেন? ছেলে জেরা করথত শুরু করে। তুমি মাছ কাটতে পার না বলে আমি তো বাজার থেকে মাছ সব সময় কেটে আনি। তোমার মা ভাই নিশ্চয় সেটা জানেন? তাছাড়া আজ হঠাৎ বিয়ের তিন বছর পর এত মাছ পাঠাবার মতন দরদ উঠলে উঠল কিভাবে? আমার মাকে শাস্তি দেবার জন্য? হ্যা শীলা আমার মাকে শাস্তি দেবার জন্য?
মুকুল আই এ্যাম সরি! বউ কাঁদতে শুরু করে। ... আমি একটা অপদার্থ আমি সবসময় ভাল কিছু করতে গিয়ে গুবলেট পাকিয়ে ফেলি।
দেখ শীলা আই এ্যাম রিয়েলি হার্ট। এসব ঢং-ঢাং বন্ধ কর।
মুকুল প্লিজ আমাকে একটু বলতে দাও! প্লিজ! শোন না তাকাও না আমি তোমাকে সারপ্রাইজ দিতে চেয়েছিলাম-
আমার মাকে বুয়ার মতন খাটিয়ে? আরে বুয়াকেও কেউ কোনদিন এতগুলো মাছ কোনদিন কাটতে দেয় না!
আস্তে বল! মা শুনতে পাবেন!
আচ্ছা! তাতে কি তোমার কিছু যায় আসে?
মুকুল প্লিজ! আমাকে একটু সুযোগ দাও। ওহ্!.. প্লিজ একটা কথা বলব-
বল।
আমি তোমাকে সারপ্রাইজ দিতে চেয়েছিলাম। তুমি মাছ খুব পছন্দ কর তাই আমি তোমার তিরিশতম জন্মদিনে তিরিশ পদের মাছ রেঁধে খাওয়াতে চেয়েছিলাম। মাছ কিনতে কিনতে টাকা সব শেষ হয়ে গিয়েছিল, এ জন্য মাছ আর কেটে আনতে পারিনি... .. আমি তো বুঝিনি মাছ সব আজকেই কাটতে হবে। বউ ফুঁপিয়ে কেঁদে ওঠে। আই এ্যাম সরি! উঃ!.. উঃ... 
কি হলো?
খুব খারাপ লাগছে। ঘাড় ব্যাথা করছে।
তোমার মনে হয় প্রেশার কমে গেছে। বস। বস এখানে। 

মা, কই মাছগুলো কখন কাটবে?
আজ আর কাটমু না বাবা। রাত হয়া গেছে। কই টাকি আর চিংড়ি পরেও কাটা যায়।
ইয়ে মা, হয়েছে কি, শীলার শরীরটা খারাপ । কোনকিছু নিয়ে মন খারাপ হলে বা কেউ খারাপ ব্যাবহার করলে ওর প্রেশার খুব লো হয়ে যায়। তখন খুব কষ্ট পায়। খেতে চায় না কিছু। কিন্তু এসময় ওর বেশি বেশি খাওয়া খুবই দরকার। ইয়ে ও একটু ওই কই মাছ ভাজি আর টাকি মাছ ভর্তা দিয়ে ভাত খেতে চাচ্ছিল..আর দু চারটা মাছ একটু কাটা যাবে না মা? মা, তুমি মাছ কাট, আমি মাছ ধুয়ে দেই।
না না। কোন অসুবিধা নাই। আমি কাটতেছি। তুমি যাও। বউমার পাশে থাক।
তুমি একা পারবে মা? আটটা তো বেজে গেছে, ভাতও তো বসাতে হবে-
আমি সব করতেছি বাবা তুমি চিন্তা কইরো না। যাও। কথা বললে কামে দেরি হবে।
আচ্ছা তাহলে আমি যাই। 
কি হারামি ছেলেরে বাবা! এতদিন তো আমি খুউব ভালমানুষ ভাবছিলাম! মায়ের দিকে তাকানো যাচ্ছে না, ব্যাথায়, ক্লান্তিতে ‍মুখটা শুকিয়ে এতটুকুন হয়ে গেছে। সে আবার আসছে আরও মাছ কাটার ফরমায়েস নিয়ে। উপায় থাকলে আমি ধর্মঘট করতাম। এরকম ছেলের বউ এর জন্য মাছ কাটতাম না। কিন্তু আমার কি আর সে উপায় আছে! আমি সামান্য বটি দা।

রবিবারের চিঠি -৩

ভালবাসা আর না বাসা

প্রিয় হিরন্ময়,

আমাদের বিয়ে না করাই ভাল!

ভাবছিস তবে আর চিঠি লিখছি কেন!

জানিস কি মুখের ভাষা থেকেও হাতের লিখা কথাটা হৃদয়ের অনেক বেশি কাছের?

নিশ্চয় ভাবছিস আজ হঠাৎ অতটা ভেতরের কথা বলতে কেন বসলাম! অবশ্য এখানেও ঝামেলা বিস্তর। কারণ আমার নিজস্ব রকমের কথা বলাটা তোর কাছে বরাবরই খানিকটা দুর্বধ্য। ফলে আমার আসল কথাটা বেশিরভাগ সময়ই তুই নিজের মত করে বুঝে নিস এবং প্রায়শই সত্যর সাথে তার সম্পর্ক থাকে সামান্যই। কিছুটা তুই বুঝিস না। বুঝিস না যে তাও বুঝিস না। আর বাকি যেটুকু যা তুই বুঝিস না বলে বুঝিস তা তুই দ্বিতীয়বার জানতে চাস না। – হয়তো অনাগ্রহে অথবা না বোঝাটা লুকাতে!

সেজন্যই এই চিঠি লিখতে বসা। ভালবাসার চিঠি না হোক না বাসারও নয়!

হিরন্ময়, চিঠিটা লিখছি কারণ চিঠিটা বারবার পাঠ করা যায়। লিখাটা বারবার পড়া যায়। একবার পাঠে বাক্যের আড়াল থেকে যে ভাবনা গুলো ঠিকমত বেড়িয়ে আসে না। পুন:পাঠে তার সম্ভাবনা থাকে।

আগেই বলছি লিখাটা আমার নিজে জন্য লিখছি, সেক্ষেত্রে – ইচ্ছে করলে তুই আর নাও পড়তে পারিস।

করোনাকাল ৬: পিশাচ / ( করোনা কালে যখন পুরুষ মানুষটির বাইরে মানে অন্য নারীর কাছে যাবার উপায় নাই, অফিসের কাজও নাই তখন বউকে অত্যাচার করাই সেরা বিনোদন।)

শিউলি শিউলি! ডাক শুনতেই বুকটা হিম হয়ে আসে। অল্লাহ! আর সহ্য হয় না!

আমার কেমন জ্বর জ্বর লাগতেছে! খুক খুক কাশতে কাশতে বলে শিউলি।

ও কিছু না- কি! কি বললা? সর সর আমার কাছে থিকা! আগে বলিস নাই ক্যান?

পথে বের হতেই শাহীন কেঁদে ফেলে। ও আপা তোমার হইছে এখন তো আমারও হবে, না? তাছাড়া আমরা এখন যাব কোথায়? গাড়ি তো নাই।

হাইটা যামু।

মানিকগন্জে হাইটা যাইবা?

যামু। না হয় দুই তিনদিন লাগবো. না হয় একটু ক্ষিাধার কষ্ট হইবো , না হয় একটু পা ব্যাথা হইবো, কিন্তু বাইচা থাকলে সব কষ্টই এক সময় ভুইলা যামু।

কিন্তু করোনায় যদি মইরা যাও?

আমার করোনা হয় নাই।

বালক শাহীন এক মুহুর্ত সময় নেয় বোনের কথা বিশ্বাস করতে। তারপরেই একমাস পরে ঘরের বাইরে বের হতে পেরেছে বলে খুশি হয়ে ওঠে।

গুডবাই ( স্বামীর স্ত্রীকে বিদায় দেবার গল্প। )

বোবা কান্না (এক রুমের একটি বাসায় বন্দী এক কিশোর )

সংবিধিবদ্ধ সতকর্কীকরণ:

গুজব অথবা করোনা থেকে দূরে থাকুন!

মেহের আফরোজ শাওন ল্যান্ড ফোনে কথা বলছেন। আসলে শুনছেন। যা বলবার ওপর প্রান্তের ভদ্রমহিলাই বলছেন। শাওন কেবল অনাগ্রহে হু হা করছেন।

জ্বী অলাইকুম সালাম।

গুজব অথবা করোনা থেকে দূরে থাকুন!

রুপালী পর্দা এপার ওপার

সলো মঞ্চ নাটক।

নাটকের শুরুতে দেখা যাবে একেবার প্রিন্সেস এর সাজে বলিউডের নায়িকাদের মতন অর্ধবক্ষ উন্মুক্ত পোশাকে দিীর্ঘ কেশ সমেত নায়িকার সিনেমার শূটিং হচ্ছে। নাটকের অধের্ক জুড়ে থাকবে শুটিং ও ইউনিটের সবার সাথেকার গল্প। আলো ঝলমলে রুপালী জগতেও মেয়েটি নিরাপদ নয়, ডিরেক্টর প্রজোযক বা হিরো থেকে। আস্তে আস্তে সহকারীরা পোশাক চুল মেক আপ হাই হিল সব খুলে ফেলবে। রিভিল হবে আতি আতি সাধারণ এক মেয়ে। বাড়ি ফিরলে যাকে জামাই ও অন্যদের নির্যাতন সহ্য করতে হয়। আরও ফেতরে নারী নিজেও নিজেকে নির্যাতন করে। আসলে নাররে নিজে আগে নিজেকে শ্রদ্ধা করতে হবে। ভালোবাসতে হবে।

লেখকের ইন্টারভিউ

ইলোরা লিলিথ

(পাগলের মতন লেখেন এক বিখ্যাত সাহিত্যিক। কোন সামাজিক কাজ করেন না। কোন ইন্টারভিউ দেন না। একজন সাংবাদিক যার নাম হুমু, অবশেষে সে রাজি করায়। লেখক ইন্টাভিউ শেষ হলে বলবে : আমি তোমার কথায় রাজি হয়েছি কারণ তোমার নাম হুমু! )

লেখক বলবেন: আমি শুধু একজনের জন্য লিখি। যে আমার থেকে এখন খুব দূরে আছে। একমাত্র আমার লিখা পড়েই সে আমার কাছাকাছি থাকতে পারে।

These forms of sildenafil are generic versions of a brand-name drug called Revatio. cialis malaysia price Like Revatio, these forms of sildenafil are used to treat a condition called pulmonary arterial hypertension PAH.

বাবা দিরস

0

আঁখি

ছায়াছন্ন বয়স সেদিন বাড়ীতে ইফতারের আয়োজন ছিলআমার আব্বার পঞ্চাশ পেরিয়ে গেছেঅনেকে এই বয়সটাকে ছায়াছন্ন বয়স বলে,ছায়াছন্ন বাড়ীতে ছায়াছন্ন বয়সটিছুটোছুটি করছে ;দাঁতে দাঁত চেপে লাল-লাল ভারী পর্দা সরিয়েসবার ভুল ধরছে;কাপ- ডিশের ঠুং ঠাং ছোলা-বেগুনি-পিয়াজু-চপের কলাকুঞ্জ,দুপুর গড়িয়ে নিপাট সন্ধ্যা তারপর সাইরেন।এক ঝলক পাশের ঘরে তাকিয়েমায়ের ব্যস্ত হাত দেখে,আব্বা ফিরে গেলেন সূর্যচক্রে ;অভুক্ত শিশুর সোজা চোখের মতোআব্বা এখনও তাকিয়ে আছেন আমাদের টুকরো টুকরোছড়িয়ে পড়া ছেলেবেলায়।এখনও ইফতারপার্টি হয় ;ছায়াছন্ন বিকেল আসে ;ঘন হয়ে আসা সন্ধ্যায়ছায়াছন্ন বয়সটা কেবলআর ভুল ধরে না।

টুনটুনশব্দআমারবাবারোজ ভোরে নামায পড়েসাইকেলের টুনটুন করেদোকানে যেতো,দুপুর মাথায় নিয়েফিরে আসতোআমার জানালার ধারেকখনও হাওয়াই মিঠাইকখনও পেপারমিল চকলেটআবার কখনও রবিনক্রুশোর গল্প।দূর ছায়ারসৈ কতেসাইকেলের টুনটুন শব্দটিপৃথিবীর বিহ্বলতায় এখন বহুদূর॥

Depending on the type of minipill your doctor prescribes, your period may be longer or shorter than normal, or may stop completely. where to buy cialis in malaysia If you experience a heavy menstrual flow for more than a week, you should contact your healthcare provider immediately.

বিশ্বের আরো ১০ প্রতিভা: মানসিক অসুস্থ হয়েও যাঁরা সফল

(১১)ভিনসেণ্ট ভ্যানগগ তিনি ডাচ চিত্রশিল্পী। American Journal of Psychiatry পত্রিকার মতে তার বিষন্নতা,বাইপোলার ডিসওর্ডার, মৃগীরোগ এবং সিজোফ্রেনিয়া ছিল।ধারণা করা হয় যে সিজোফ্রেনিয়া তার পারিবারিক ভাবে পাওয়া। পত্রিকায় লিখা হয়”Dutch painter Vincent Van Gogh had an eccentric personality and unstable moods,suffered from recurrent psychotic episodes during the last 2 years of his extraordinary life and committed suicide at the age of 37.Despite limited evidence, well over 150 physicians have ventured a perplexing variety of diagnoses of his illness”যদিও অন্য অনেক লেখক ও চিকিৎসকদের মতে এটি বিতর্কিত।

(১২)এডল্ফ হিটলার ধারণা করা হয় যে হিটলারের সম্ভব্য কিছু মানসিক অসুস্থতা ছিল এবং এই ব্যাপারে চিকিৎসকগণ কিনা ধারণা করেছিলেন যদিও এই ব্যাপারে শক্ত প্রমাণ পাওয়া যায় নি।বেশকিছু চিকিৎসক এবং লেখক যারা হিটলার কে ব্যক্তিগত ভাবে চিনতেন বা তাকে নিয়ে পড়াশোনা করেছেন তাদের মতে হিটলার একাধারে schizophrenia, narcissistic personality disorder, sadistic personality disorder, antisocial personality disorder, Asperger’s syndrome এ ভুগছেন।

(১৩)ভ্লাদিমির পুতিন ২০০৮ সালের একই পেন্টাগন এর গোপন গবেষণা অনুসারে, ২০১৫ সালে প্রকাশ হওয়া একটি খবর অনুসারে রাশিয়ান নেতা পুতিন অটিজম এ আক্রান্ত (Asperger’s syndrome)  একদল ডাক্তার এর মতে তারা বড় সমাজে পুতিন এর গতিবিধি ও আত্মরক্ষামূলক আচরণ লক্ষ্য করেন এবং এই সিদ্ধান্তে পৌঁছান যে,শৈশবে পুতিনের স্নায়ুবিক বৃদ্ধির ব্যাপকভাবে ব্যাহত হয়েছিল কিছু দুঃখ জনক ঘটনার দ্বারা।

(১৪)জ্যাক কেরোএকতিনি একজন বিখ্যাত ঔপন্যাসিক ও কবি।১৯৪৩ সালে তিনি নৌবাহিনীতে যোগদান করেন।তার উর্ধ্বতন কর্মকতারা তার অদ্ভুত আচরণ লক্ষ্য করেন এবং তাকে তৎক্ষণাৎ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে নৌ হাসপাতালে নেয়া হয়।যেখানে ডাক্তারগণ তাকে দেখেন এবং বলেন”Neuropsychiatric examination disclosed auditory hallucination ideas of reference  and suicide and a rambling, grandiose, philosophical manner”তার মধ্যে Dementia praccox(schizophrenia)  লক্ষ্য করে যায় এবং তাকে সাইকায়াট্রিস্টদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

(১৫)জোসেফ স্টালিন তিনি একজন সোভিয়েত শাসক ছিলেন।গবেষকগণ তার ব্যাপারে গবেষণা করে বলেন তার Clinical narcissism,Paranoid personality disorder ছিল। ইতিহাসবেত্তা ও কিছু চিকিৎসক সাংবাদিকদের মতে,তার মদ্যপ বাবার অপব্যবহার তাঁর মধ্যে একটি বিরূপ প্রভাব তৈরি করে। যার ফলে তার Clinical paranoia দেখা দেয়।
(১৬)নেপোলিয়ন বোনাপার্টইতিহাসের শক্তিশালী নেতাগণও যে মানসিক অসুস্থতায় থাকতে পারে তিনি তার একটি উদাহরণ। তার Clinical narcissism, NPD(Narcissistic Personality Disorder) ছিল।

১৭. মুয়াম্মর এল গাদ্দাফি

১৯৮০ সালে CIA “Bob Woodward Veli” এর মাধ্যমে উল্লেখ করেন গাদ্দাফির কথা।এর মতে তার Borderline personality disorder ছিল।CIA এভাবে ব্যাখ্যা করে “A mental disorder characterized  by unstable moods,behaviour and relationship “আরো বলে “alternative between crazy and non crazy behaviour “

১৮. আর্নেস্ট হেমিংওয়ে

তিনি একজন আমেরিকান লেখক। তার মধ্যে Clinical depression, bipolar disorder, borderline and narcissistic personality traits দেখা যায়। তার অ্যালকোহল নির্ভরতা ছিল। মস্তিষ্কে আঘাতের কারণে ১৯৬১ সালে Depression এ তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন।

১৯. ভির্জিনিয়া উল্ফ

তিনি একজন ইংরেজ লেখক। তিনি Severe depression এবং bipolar disorder এ ভুগছেন।The American Journal of Psychiatry এর মতে
“Woolf experienced mood swing from severe depression to manic excitement and episodes of psychosis “এ কারণে তিনি একটি প্রতিষ্ঠানে ছিলেন যাতে তিনি তার আত্মহত্যামূলক চিন্তাভাবনা থেকে বের হয়ে আসতে পারেন।


২০. মাইকেল এঞ্জেলো

তিনি একজন নবজাগরণের শিল্পী। তার মধ্যে Obsessive compulsive disorder, high functioning autism(Aspergee’s syndrome) দেখা দিয়েছিল।Medical Biography পত্রিকায় ২০০৪ সালে প্রকাশিত লেখাগুলোর অংশ বিশেষ “He relates to his single minded work routine, unusual lifestyle, limited interests, poor social and communications skills and issues of life control”
উদ্দেশ্যঃএই পুরো লিখাটি একটি পরীক্ষামূলক প্রতিবেদনে। তার সাথে এই না যে,মানসিক অসুস্থতা একটি ভালো জিনিস। সম্পূর্ণ লেখাটি কৌতুহল উদ্দীপক এবং মানসিক অসুস্থতায় ভোগা মানুষদের কিছুটা উৎসাহ দেয়ার প্রয়াস। 
মানসিক সুস্থতা খুব গুরুত্বপূর্ণ। সবাই নিজে ভালো থাকুন,অন্যকে ভালো রাখুন এবং 
মানসিক ভাবে সুস্থ থাকুন।

Dette er en alvorlig skade, da de ikke længere er mangelvare forbundet med brugen af en rigelig kilde sammenlignet med specifik anæstesi, selvom mængden af betændelse i hver af dem ikke påvirkes. cialis bivirkninger Håndhulrummet åbnes bagud gennem aditus ind i virusets mulige antrum.

প্রেম অথবা হত্যা রহস্য

এক.

ইনস্পেক্টর আরিফ তখনও ঘটনার সুরতহাল তৈরির কাজ কাজে ব্যস্ত ।

বাড়িওয়ালা কবীর সাহেব দরজার বাইরে থেকে ফোন উঁচিয়ে ধরেন, ‘মিস্টার আরিফ…’

আরিফ লাশের অবস্থা ও আস্থানের নোট নিচ্ছিল। দরজা দিয়ে তাকায় বাইরে।

কবীর সাহেব হাত বাড়িয়েই আছেন, ‘আপনার ফোন…’

‘আমার ফোন?’

প্রশ্নটা করে বটে আরিফ, কিন্তু সে জানে ফোনটা বেশ উঁচু মহলের কাউকে করে তাকে ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে। অকারণে নিজের অবস্থান বোঝাবার কসরত যতসব। পুলিশি জীবনের এ এক সাধারণ অভিজ্ঞতা।

আরিফ খুব বিরক্ত হয়। রাগও হয়।

‘কে?’ বলে সে উত্তরের অপেক্ষা না করেই যোগ করে, ’বলুন, আমি ব্যাক করছি।’

বিরক্তি, রাগ দুটিই সামলাবার চেষ্টা করে সে।

‘জরুরী ফোন, ডিআইজি…’

‘আপনি বলুন, আমি ব্যাক করব।’

আরিফ বেশ আত্মবিশ্বাস ফুটিয়ে তোলে কণ্ঠে।

কবীর সাহেব খানিকটা অপ্রস্তুত হন। যে উৎসাহ আর উত্তেজনায় ফোনটা বাড়িয়েছিলেন তাতে বেশ ভাঁটা পড়ে।

আরিফ কাজ মন ফেরাতে গিয়ে টের পায় মেজাজটা ভালই তেতে গেছে। সেটুকু হজম বা তার অহং রক্ষা করতে সে নোট লেখা আপাতত বন্ধ রেখে কিছুটা পিছিয়ে গিয়ে আবার শুরু করে। লাশের দিকে তাকায় আবারো।

ওদিকে কবীর সাহেব আরিফের হয়ে ফোনে কৈফিয়ত দিচ্ছেন, ‘জ্বি ভাইজান, উনি আপনাকে ব্যাক করবেন। এক্ষুনি, করোনার সময় তো, সবাই খুব সতর্ক…’

লাশটি খানিকটা বাঁকা হয়ে ডাইনিং টেবিলের উপর পড়ে আছে। গলার দড়িটা বলছে, হত্যা বা আত্মহত্যা যাই হোক পূর্ব-পরিকল্পিত। ফাঁস লাগানোর এমন দড়ি সাধারণত কারো ঘরেই থাকে না। দড়ির মাথাটা কাটা। ওপাশটা ঝুলছে ফ্যানের হুকের সাথে। একট দা’ পড়ে আছে টেবিলে। মনে হয়, এই দা’ দিয়েই কাটা হয়েছে দড়িটি। দুটি চেয়ার মেঝেতে কাত হয়ে আছে। একটি সম্ভবত ফাঁসিতে ঝোলার জন্য টেবিলের উপর রেখে ব্যবহার করা হয়েছিল, অন্যটি লাশ নামানোর জন্য।

এখন পর্যন্ত যা জেনেছে আরিফ, লাশ নামিয়েছে দারোয়ান। সে এখন পলাতক। জানিয়েছেন কবীর সাহেব।

‘লাশটি একা নামিয়েছে দারোয়ান?’

আগের মতোই পুলিশি প্রশ্নটি ফের আসে আরিফের মনে।

‘নিশ্চয়ই না। এভাবে দড়ি কেটে লাশ নামানো একার পক্ষে সম্ভব নয়।’

আরিফ আবারো গভীর মনোযোগে নিরিখ করে মৃতদেহটি।

একহারা লম্বা শরীর। পাঁচ ফুট নয় বা দশ ইঞ্চি হবে। কোথাও এক ফোঁটা মেদ নেই। পেশল আর বলিষ্ঠ গড়ন। নিয়মিত ব্যায়াম বা খেলাধূলা করত সে সন্দেহ নেই।

মুখের কাছে এসে আরিফের দৃষ্টি এবার স্থির হয়ে পড়ে।

সে শুধু হ্যান্ডসামই নয়, সুন্দর। খুব সুন্দর- সাধারণত পুরুষের সৌন্দর্য বলতে যা বোঝায়, তার সবই তার আছে।

পুরো ঠোঁট, উচ্চ কপাল, প্রশস্ত চেহারা, ছোট চিবুক, খাঁড়া নাক, ছোট এবং সরু চোয়াল, পরিষ্কার এবং মসৃণ ত্বক এবং প্রশস্ত দুটি চোখ।

দুটি চোখ এখনো কি তীক্ষ্ণ!

আগের বার খেয়াল করে নি আরিফ- ফাঁসিতে ঝুলে ‍মৃত্যুর যে তীব্র যন্ত্রণা থাকে মৃতের চোখে-মুখে, এর তা নেই।

মৃত্যুর যন্ত্রণাটা সে লুকিয়েছে কেমন করে?

আবারো পুরো শরীরটা দেখে আরিফ।

ছেলেটির নাম জেনেছে সে- হাসিব।

‘হাসিব, নিজেকে খুন করতে গেলে কেন তুমি?’ মনে মনে বলে আরিফ।

‘নাকি কেউ খুন করেছে তোমাকে?’

কে?’

দারোয়ান?’

ধরে নেয়া যাক দারোয়ান একাই লাশ নামিয়েছে। নামিয়েছে তো। সে নিশ্চিতই খুন করে নি।’

তবে কে?

বা কারা?’

আগে থেকেই ভেতরে ছিল সে? বা তারা ?’

কবীর সাহেব বলছেন, বেশ ক’দিন ধরে আরিফ একাই ছিল বাসায়। রাতে কেউ এসেছিল কিনা সে ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না।

অবস্থা দৃষ্টে এখন পর্যন্ত যা মনে হচ্ছে খোলা দরজা দিয়েই দারোয়ান ঘরে ঢুকেছিল।

দরজা ভাঙার কোনো আলামত নেই।

‘খুন করে পরে লাশ ফ্যানের সাথে ঝুলিয়েছে? কিন্তু তা করতে যাবে কেন?’

‘এটা আত্মহত্যাই হবে।’ উপসংহার টানার চেষ্টা করে আরিফ। তারপর নোট লেখায় ব্যস্ত হয়ে পড়ে। লিখতে লিখতেই বলে-

‘কামরান সাহেব।’

এএসআই কামরান পাশেই দাঁড়ানো ছিল।

‘জ্বি স্যার?’

‘ছবিগুলো তুলতে পারবেন আপনি?’

‘জ্বি স্যার।’

‘তুলে ফেলুন তবে। সব এঙ্গেল থেকে তুলবেন। আমি একটু ওদিকটা দেখি।’

ডাইনিং টেবিলের পাশে- টেবিল থেকে ছ’-সাত ফুট দূরে একটা কাউন্টার- ঠিক রেস্টুরেন্টের মতো- ওপাশে কিচেন। কিন্তু এদিক থেকে কিচেনে ঢোকার কোনো দরজা নেই। কাউন্টারের ফাঁক গলিয়ে দৃষ্টি ফেলে আরিফ কিচেনে ঢোকার পথ বের করার চেষ্ট করে।

বাসার আকার-আকৃতি অনুযায়ী বেশ বড় কিচেন। বারমুখি দেয়ালের সাথে দরজা, মনে হয় দরজা খুললেই শূন্যে বেরুতে হবে। দৃষ্টি ফিরিয়ে আরিফ কবীর সাহেব যে দরজা দিয়ে ফোন দিতে এসেছিলেন তাকায়।

‘আচ্ছা তাহলে এদিক দিয়ে কিচেনে যাবার রাস্তা আছে।

আরিফ ঘুরে এপাশে এসে দরজা ঠেলে বের হয়। আর অমনি মধুমঞ্জরী ফুলের তীব্র গন্ধ এসে লাগে নাকে। তখনো সূর্য ওঠেনি, কিন্তু দিনের আলো ফুটে উঠেছে।

আরিফ বেরিয়েছে সরু একটা ঝুল বারান্দায়। বারান্দা মানে দেড়ফুট প্রশস্ত একটা দীর্ঘ পেসেজ। ফুট দশেক দূরে হাতের বাঁয়ে কিচেনে ঢোকার দরজা। কিচেনের দরজা ছাড়িয়ে পেসেজটি চলে গেছে আরো ফুট দশেক। পুরো পেসেজটি গ্রিল দিয়ে বন্ধ করা। আর পুরোটা গ্রিল জুড়ে মধুমঞ্জরীর সঘন ঝাড়- ফুলে ফুলে ছেয়ে আছে। ঝিরঝিরে বাতাসে দুলছে গুচ্ছ গুচ্ছ ফুল।

আরিফের সামনে দরজার ঠিক বরাবরে ছোট্ট একটা গেট- খোলা। গেট থেকে বেরুলেই সামনের বিল্ডিংয়ের ছাদে নামার জন্য তিন ধাপ সিঁড়ি।

ছাদটা ভিষণ সুন্দর। ডান পাশটা জুড়ে বেশ বড় একটা বাগান। দেশি-বিদেশি ফুল আর ফল। কতগুলো গাছে ধরেছে আমের কুশি।

বাগনের পরে পাশ ঘেঁষে সিমেন্টের বেঞ্চ করে বসার ব্যবস্থা। একটু ভেতর দিকে মুখামুখি বসার জন্য আরো ক‘টি বেঞ্চ।

ছাদের মাঝখানে বিশাল একটি ছাতা। তার নিচে গোল একটি টেবিল। টেবিলের চারপাশে সিমেন্টের টুল। সেখানে বসে আছেন বিমর্ষ কবীর সাহেব- একা। ভদ্রলোককে দেখে কেন যেন মুহূর্তের মধ্যেই আরিফের মনের মধ্যে মায়া জমে ওঠে। তখন ফোন না ধরার জন্য খানিকটা অনুতপ্তও হয় সে।

আরিফকে দেখে ভদ্রলোক হাত তোলে। আসবে কিনা ইশারায় জানতে চায়।

আরিফ ইশারায় তাঁকে বসতে বলে। তারপর কিচেনের দিকে পা বাড়ায়।

ছিমছাম পরিচ্ছন্ন কিচেন। কেবিনেটের দরজাগুলো সব বন্ধ। সবকিছু ধোয়া, পরিষ্কার।

সেখান থেকে বেরিয়ে সে এগোয়, যায় পেসেজের শেষ মাথা পর্যন্ত। একেবারে প্রান্তে হাতের বাঁয়ে আরো একটি দরজা। নব ঘুরিয়ে ঠেলতেই দরজা খুলে যায়। দামি টাইলসে মোড়ানো বেশ বড় একটি বাথরুম।

বাড়ির একেবারে বাইরে, এমন একটা বাথরুমের কথা কেউ ভাবতেই পারবে না। তারপর তার মনে হয় ভেতরের রুম দুটি বড় হলেও কোনোটির সাথেই বাথরুম নেই। এমন কি ফাঁস ঝোলানো ড্রয়ি রুমের সাথেও না। তার মানে বাসাটার এই একটাই বাথরুম। দরজাটা আর একটু ঘুরিয়ে ডান দেয়ালে তাকাতেই বড় আয়নায় তার চোখ আটকে যায়।

আয়নার জুড়ে একটা ছবি আঁকা। আাঁকা মানে রীতিমত রঙতুলি দিয়ে ঘটা করে পেইন্টিং। পুরো আয়নাটি হালকা নীল আর সাদা দিয়ে ঢাকা। তার উপর মরা হলুদ, সাদা আর মিশেল সবুজের মোটা ব্রাশের পোঁচ আর ছোঁপ। সামনে সেমি প্রোফাইলে একটি মেয়ের উর্দ্ধাংশ। অপূর্ব সুন্দর সে। পড়েছে সাদা শাড়ি লাল পাড়। ঠোটে মায়াবী হাসি। সবুজ, হলুদের পোঁচগুলো উপচে এসে পড়েছে তার শাড়ি, হাত, গলা আর মুখের উপর। তারপর আঁকিবুকি করে কিছু একটা লেখা। সেটুকুতে রঙ নেই, আয়না।

দরজার বাইরের সুইচ টিপে আলো জ্বালে আরিফ। কাছে যেয়ে লেখাটি পড়ে।

‘তোমাকে ছাড়া এখন আমি বাঁচব কেমন করে?’

বেশ কিছুক্ষণ তাকিয়ে ছবিটি দেখে আরিফ। তারপর মোবাইল বের করে ছবি তোলে।

সরু পেসেজ ধরে ফেরার সময় আরিফ দেখতে পায় কবীর সাহেব বসে আছেন সেভাবেই- বিষণ্ণ, একা।

সিঁড়ি বেয়ে ছাদে নেমে আসে আরিফ। আরিফকে আসতে দেখে কবীর সাহেব মাস্ক পড়ে নেন মুখে। আরিফও যেতে যেতে মাস্ক ঠিক করে নেয়।

‘দুঃখিত স্যার, আপনাকে রাত জাগাতে আর অপেক্ষা করাতে হল।’ কাছে এস বলে আরিফ।

‘না না এ তেমন কিছু নয়। এটা তো আমার নাগরিক দায়িত্বও। দেখুন তো, এই করোনা মহামারীর দুঃসময়ে কেমন একটা দুর্ঘটনা ঘটে গেল।’

‘দারোয়ানের কোনো খোঁজ করতে পারলেন?’ আরিফ প্রয়োজনীয় কথগুলো সারতে চায় আগে।

‘আমি তো সারাক্ষণ ফোন দিয়েই যাচ্ছি। প্রথম কয়েকবার ফোনটা ঢুকলো, কিন্তু ধরলো না। এখন তো একেবারেই বন্ধ।’

‘ কিন্তু আমাদের ওকে লাগবেই, খুব জরুরী। আপনি বরং ওর ডিটেইলসটা দিয়ে দিন, আমরা ট্রেস করে নেব।’

‘আচ্ছা আচ্ছা, বাসায় আছে, আমি দিয়ে দিচ্ছি।’

‘আর হাসিবের মা-বাবার কোনো নাম্বার? বা অন্য কোনো কন্টাক্ট..’

’আমার ছেলেকে বলেছি। ওর তো চেনা, খুব শীঘ্রীই পেয়ে যাব।’

‘পেলে ভাল, না পেলে ভাড়াটিয়া ফরমে যে স্থায়ি ঠিকানা আছে, সেখানে আমাদের চ্যানেলে আমরা খবর পাঠিয়ে দেব। ও হ্যা, আর একটা বিষয়ে আপনাদের একটু কষ্ট দেব, আপনার এবং বাসার অন্যান্যদের একটা স্টেটম্যান্ট নেব আমরা, মানে ওটা আমাদের করতে হয়।’

‘বাসার সবাই মানে… ’ ভদ্র্রলোক যেন একটু চিন্তায় পড়ে যান। ‘… না মানে আমার বাসায় আমি আর আমার স্ত্রী ছাড়া তো কেউ নেই। আর উনিও এখন ঘুমাচ্ছেন।’

‘না না এক্ষুণি দরকার নেই। আপনিও বরং বাসায় যেয়ে বিশ্রাম নিন। সন্ধ্যায় যদি একবার দয়া করে থানায়ে আসতে পারেন- আমরা ওখানেই কাজটা সেরে নেব।’

‘হ্যা হ্যা সেটাই ভাল হবে।’ এবার বেশ উৎসাহ দেখান কবীর সাহেব।

‘সুরতহাল শেষে লাশটা আমরা মর্গে পাঠিয়ে দিব। পরে অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেয়া যাবে। আমরা কিছু জিনিস তদন্তের জন্য জব্দ করছি। সাক্ষী হিসেবে আপনি একটা স্বাক্ষর করে দেবন।’

‘কোনো সমস্যা নাই করে দেব।’

‘আচ্ছা, এবার একটু ফোন নাম্বারটা দিন, তখন তো আমি ব্যস্ত ছিলাম…’ প্রসঙ্গ পাল্টায় আরিফ।

‘না না তার আর দরকার নেই, তখন কি করব ‍বুঝে উঠতে না পেরে… আসলে আমি একটু ভয় পেয়ে গেছি তো।’

‘আপনি নাম্বারটা দিন, এখন ব্যাক করাটা আমার দায়িত্ব।’

অগত্যা নাম্বার দেন কবীর সাহেব। আরিফ কল করে এবং স্পিকার লাউড করে দেয়।

‘স্লামালিকুম স্যার…’

‘হ্যালো, ডিআইজি, এসবি বলছি, হারুন অর রশীদ’

’জ্বি স্যার।’ সটান দঁড়িয়ে পড়ে আরিফ।

‘ইন্সপেক্টর আরিফ বলছি স্যার, ডিউটি অফিসার পল্টন থানা।’

‘কাজ শেষ হয়েছে তোমার?’

‘জ্বি স্যার।’

‘শোন…’

‘স্যার…’

‘কবীর সাহেব আমার খুব ঘনিষ্ঠ জন…’

‘স্যার…’

‘আপন ভাই নয়- তবে তার থেকেও কম কিছু নয়…’

‘স্যার…’

‘দেখো, উনি যেন অযথা কোনো ঝামেলায় না পড়েন।’

‘স্যার, আপনি নিশ্চিত থাকুন স্যার, উনি অযথা কোনো ঝামেলায় পড়বেন না।’

‘উইশ ইউ গুড লাক। ভাল থেকো।’

‘থ্যান্ক ইউ স্যার।’

‘বাই।’ ওপাশ থেকে ফোন কেটে দেয়।

কান থেকে ফোন সরিয়ে আরিফ কবীর সাহেবের দিকে তাকায়। হাসে।

‘কিচ্ছু ভাববেন না আপনি স্যার, ছেলেটির আর কেউ থাকলে আপনাকে এতটুকু বিরক্ত করতাম না।’

‘সে আমি বুঝতে পারছি। আমি খুব লজ্জিত।’

‘না না, ও কিছু নয়।… বাই দ্য বাই, আপনার ওই বাসাটা কিন্তু অন্যরকম।’ সহজ হতে প্রসঙ্গ পাল্টায় আরিফ।

‘আর বলবেন না। আমার ছেলের কাণ্ড। এটা…’ নিচে আঙুল নির্দেশ করে দেখান তিনি। ‘… আমার বাবার করা। ষাটের দশকে। তিন তলার বেশি তখন সাধারণত করত না মানুষ। পেছনটা ছিল সারভেন্টস হাউজ। গ্রামের বাড়ির মতো ছোট্ট ছিমছাম বাড়ি ছিল ওটি। বছর বিশেক আগে, সংসারের খরচে দেখি আর কুলাতে পারি না। তাই ভাড়া দেবার জন্য করেছিলাম। তিন তলা করার পর টাকার অভাবে আর করতে পারি নি। বছর পনের আগে ছেলে আর্কিটেক্ট হয়ে বেরুল বুয়েট থেকে। বলল, চারতলাটা আমি আমার নিজের মতো করে করে নিই বাবা। …বিয়ের পর আর নিজেও থাকতে পারল ডিজাইনের কারণে। অগত্যা এই ফ্লোরটা আমাকে ব্যাচালারদেরই ভাড়া দিতে হয়। তবে খুব দেখে-শুনে দেই আমি।’

‘যাই বলুন স্যার, ব্যাচেলারদের জন্য কিন্তু খুব ভাল বাসাটি।’

‘হ্যা, সৌখিন ছেলেরা খুব পছন্দ করে।’

‘ঠিক আছে স্যার, রাতের ডিউটি ছিল, দেখি বাসায় ফিরতে পারি কিনা।… লাশ আমাদের দায়িত্বে মর্গে চলে যাবে, আমি বিকেলে আপনাকে ফোন করব।’

‘ঠিক আছে। আমরা রেডি হয়ে থাকব।’

ওদিকে কামরানের কাজ শেষ হয়ে যাওয়ায় সে সেই লম্বা বারান্দায় বেরিয়ে আসে। আরিফ তাকে হাত-ইশারায় ডাকে।

‘কামরান?’

‘জ্বি স্যার।’

‘কতদূর ওদিকে?’

‘লাশ নামিয়ে নিচ্ছে স্যার, আলামতগুলোর জন্য একজন সাক্ষী দরকার…’

‘ও নিয়ে ভাববার কিছু নেই। স্যার আছেন, দিয়ে দেবেন।’ বলে তাকায় আরিফ কবীর সাহেবের দিকে।

‘হ্যা হ্যা অবশ্যই। দিন আমি সিগনেচার করে দিচ্ছি।’

‘জিনিসগুলো দেখে তবে সিগনেচার করার নিয়ম, স্যার।’ বলে কামরান।

‘জি, স্যার।’ যোগ করে আরিফ।

‘আচ্ছা তবে চলুন।’

‘যান কামরান সাহেব, আমি একটু এদিকটা দেখি।’

ওরা চলে গেলে আরিফ ছাদটা আরো একবার পর্যবেক্ষণ করে। ঘটনাস্থল থেকে যেখানে সে আছে সেখানটা ঠিক অর্ধেক- মাপে ফুট পচিঁশেক হবে। ও মাথায় কোণায় সিঁড়িঘর। বাকিটুকু ফাঁকা। ছাদ প্রাচীর ঘেঁসে সিমেন্টের বেঞ্চ করে বসার ব্যবস্থা।

আরিফ হেঁটে ওপাশের ছাদ-প্রাচীর পর্যন্ত যায়। নিচে তাকায়। রাস্তা-লাগোয়া বাড়ি। গেট দিয়ে ঢুকে বাড়ির ভেতরে একটু ফাঁকা জায়গা। এই ভবনের গা ঘেঁসে পেছনের ভবনে অর্থাৎ হাসিবদের ভবনে ঢোকার আর একটি গেট। এই গেটটি দিয়েই ঢুকেছিল আরিফরা। ঢুকে একট চিপা গলির মত রাস্তা ধরে হেঁটেছিল ছাদসমান পথটুকু।

আরিফ এসে সিঁড়ি ঘরের দরজায় দাঁড়ায়। এ পাশ থেকে দরজাটি বন্ধ করার কোনো ব্যবস্থা নেই। আস্তে ধাক্কা দিলে খুলে যায় দরজাটি। কবীর সাহেব এই দরজা দিয়েই ছাদে প্রবেশ করেছেন। আরিফ ছাদঘরের ভেতর ঢুকে যায়। এপাশ থেকে কাঠের মোটা বেন্দা লাগিয়ে দরজা বন্ধ করার ব্যবস্থা আছে।

একটু এগিয়েই বায়ে ঘুরে নিচে নামার সিঁড়ি। পুরোনো কালের ভবন বলে সিঁড়িগুলো বেশ প্রশস্ত। তলাগুলোও বেশ উঁচু উঁচু।

আরিফ সিঁড়ি বেয়ে বেশ কয়েক ধাপ নিচে নেমে আসে। কবীর সাহেব টপ ফ্লোরেই থাকেন জেনেছে আরিফ।

কবীর সাহেবের বাসায় ঢোকার দু’ট রাস্তা। একটা কাঠের দরজা। আর একটি আয়রনরডের গেট। পরের গেটটি দিয়ে ঢুকলেই বিশাল লম্বা বারান্দা। লোহার শিকের ফাঁক গলে বারান্দার ও মাথা পর্যন্ত দেখা যায়।

আরিফ বাইরে থেকে একজন নারীর বেশ জোরালো কণ্ঠ শুনতে পায়। একটু কান পাততেই স্পষ্ট হয় কথাগুলো।

‘মা, বাধা দিও না।’

তারপর অন্য একটি কণ্ঠ শোনা যায়, ‘আমি বলেছি, তুমি ঘরে যাও, আমার সাথে আর উচ্চবাচ্য করো না। যাও।…যাও।

তারপর সব নীরব।

‘কবীর সাহেব যে বললেন, তাঁর স্ত্রী বাসায় একা, ঘুমুচ্ছেন।। তিনি কি মিথ্যা বলেছেন।

কেন?

Methylenedioxymethamphetamine MDMA regularly known as joy, is a psycoactive medication basically utilizes as a recreation medication. buy viagra online malaysia The ideal impacts incorporate changed sensations and expanded vitality,sympathy,and delight.

টার্ডিগ্রেড

পানি ছাড়া একজন মানুষ বাঁচতে পারে বড় জোড় ১০০ ঘণ্টা।

মরুভূমির জাহাজ বলে খ্যাত উট বাঁচে কয়েক সপ্তাহ।

প্রকৃতিতে এমন এক প্রাণি আছে পানি ছাড়া যে বাঁচতে পারে তিরিশ বছর।

এক মিলিমিটার দৈর্ঘের এই প্রাণিটি
পৃথিবীর সবচেয়ে ঠা-া এবং সবচেয়ে গরম
তামপমাত্রায় টিকে থাকতে পারে।

এটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন পারমানবিক বিকিরণ সহ্য করতে পারে।
এমন কি অতিচাপ সহ্য করে মহাশূন্যে বসবাস করার ক্ষমতা রাখে।

এর নাম হল টার্ডিগ্রেড।

এটি হলো পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিধর প্রাণিগুলির একটি। যদিও এটি দেখতে আট পাওয়ালা নাদুসনুদুস ভালুকছানার মতো।

জীবজগতের প্রায় সবারই বেঁচে থাকার জন্য পানি অত্যাবশ্যকীয়।
কারণ পানি ছাড়া জীবকোষের ভেতরকার পরিপাক বা জৈব-রাসায়নিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে পারে না।
টার্ডিগ্রেড ও এ জাতীয় কিছু প্রাণি এ্যানহাইড্রোবায়োসিস অর্থাৎ জলহীন জীবনব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে চরম শুষ্ক অবস্থার মধ্যেও জীবন ধারণ করতে পারে।
পানির অভাব দেখা দিলে এ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য টার্ডিগ্রেড নিজের লম্বাকৃতি শরীরকে গুটিয়ে বলের মত করে নেয় এবং প্রায় জড়বস্তুর রূপ ধারণ করে। ইংরেজিতে এ অবস্থাকে বলে টান স্টেট। বৈজ্ঞানিকরা ধারণা করছেন, পানির অভাব দেখা দিলে টার্ডিগ্রেডের অভ্যন্তরে নতুন ধরনের কোষ তৈরি হয় যা গর্ভাবস্থা তৈরির মাধ্যমে বিদ্যমান সব কোষগুলোকে সঙ্কুচিত ও আবদ্ধ করে ফেলে। এটি পানির বিকল্প হিসেবেও কাজ করে। এ অবস্থায় তার জীবনক্রিয়ার গতিকে সে স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় শতকরা .০১ ভাগ মানে ১০০০০ভাগের ১ ভাগে নামিয়ে আনতে পারে। আর তাতে করে সে ৩০ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে।
পরে যখন পানির অভাব ঘুচে যায় এবং সে পানির সংস্পর্শে আসে তখন গর্ভাবস্থা ভেঙে যায় এবং জীবন কোষগুলো সম্পূর্ণ অক্ষত অবস্থায় পূর্বরূপ ধারণ করে। এই পূর্বরূপ ধারণের বিষয়টিকে অনেকে পুনর্জন্ম বলে বর্ণনা করেন।
টিকে থাকার এই অসীম ক্ষমতার কারণে অনেক কল্পনাবিলাসী টাডিগ্রেডকে ভিনগ্রহের বুদ্ধিমান প্রাণি বলে ভ্রান্ত মত দিয়ে থাকেন। এই মতটি ভ্রান্ত কেননা গবেষণায় পৃথিবীতে টার্ডিগ্রেডের ষাট কোটি বছরের বিবর্তনের ইতিহাস পাওয়া গেছে। এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্যানুযায়ী এই বিবর্তনের মধ্য দিয়ে এরা ১১০০ রকম জাতে বিভক্ত হয়েছে।
টিকে থাকার অসীম শক্তির কারণেই হয়তো টার্ডিগ্রেডদের পৃথিবীর সর্বত্রই দেখতে পাওয়া যায়। বরফ আচ্ছাদিত এন্টার্কটিকায়, তপ্ত মরুভূমিতে, সমুদ্রের লোনাজলে, স্থলের মিঠা পানিতে, অতিবৃষ্টির ক্রান্তীয় বনাঞ্চলে, পাহাড়ের চূড়ায়, এমন কি আগ্নেয়গিরি কাদায়। টার্ডিগ্রেড বাস করে আমাদের ঘরের কোণার শ্যাঁওলায়, ছাদে, গাছের বাকলে, মাঠে, ঘাটে- চারপাশে। দেখতে পাওয়ার জন্য শুধু প্রয়োজন ধৈর্য এবং একটি অণুবীক্ষণ যন্ত্র।
বিজ্ঞানীর এখন টার্ডিগ্রেডের তাপ, চাপ, শৈত্য, শুষ্কতা সহ্য করার কৌশল বের করার চেষ্টা করছেন। এই কৌশল আবিষ্কার করা গেলে হয়তো বের করা সম্ভব হবে বিশেষ ক্ষমতার টিকা, চরম আবহাওয়ায় উৎপাদন করার মতো শষ্য। হয়তো মহাশূন্যে ভ্রমণ বা বসবাস করার ক্ষমতাটিও মানুষ পেয়ে যেতে পারে টার্ডিগ্রেডদের কাছ থেকে।

Voici quelques conseils pour repérer en quelques minutes que les produits proposés sont des contrefaçons :. Regarder si le site affiche un numéro de téléphone : Tout site e-commerce sérieux affiche un numéro de téléphone pour être joignable rapidement. Un site en Français approximatif : La plupart des sites sont traduit en Français approximatif. online casino Acheter du Viagra en ligne, Est-ce possible.

উই

এক

নাহ! আর তো পারা গেল না! খুব কাছের বন্ধুরাও এখন উইপোকার পেছনে ধাবমান। গুড়ওয়ালী চৈতী আপু, মধু’পা আঁখি সিদ্দিকা, প্রিয় বাপ্পা (বাবু আপা ), কোল্ড বিফের লোভ দেখানো ইফাফাত, নতুন মিষ্টি মুখ সুরমা, ঝুনু আপু.. আরও অনেক অনেক নাম… .. .. এ যেন এক অপ্রতিরোধ্য খরস্রোতা পূণ্য ধারা। সকল আত্মা এখানে মিলে মিশে একাকার…

উই এর সবচাইতে বিস্ময়কর এর নিভৃত সুর। যখন নাটক সিনেমা বা গল্প লিখি তখন একটি মূল ভাবনা, একটি মূল সুর ভেবে নিতে হয়। এখানে এত এত মানুষ, কতই না বিচিত্র তারা স্বভাবে মননে, কিন্তু তবু উই’তে সবাই সৌন্দর্য্য আর সহমর্মিতায় নিবিষ্ট। মহাত্মা গান্ধী বলেছিলেন “ভাল অভ্যাস করুন, কারন আমাদের অভ্যাস এক সময় মর্যাদায় পরিণত হয়” 

উই পেকার যুথবদ্ধতা যেভাবে বেড়ে চলেছে হয়তো এমন একদিন আসবে যখন দেশের প্রত্যেকে প্রত্যেকের বন্ধু -নিদেন পক্ষে বন্ধুভাবাপন্ন হয়ে উঠবে।

রাজীব স্যারকে ধন্যবাদ।

ব্যক্ত হোক সম্পর্কের স্পন্দন! – এমন ভাবনায় ‘লিলিথ’ শুরু হয়েছিল। প্রকৃতি যেমন এক অমোঘ সুবে বাঁধা তেমনি আমাদের নানা বর্ণের সম্পর্ক। অনেকেই ম্যাচিং পোশাক বলতে একই রকম পোশাক পরিধান বোঝেন। কিন্তু সকলের ব্যক্তিত্ব রুচি আর বয়স কি এক? সে জন্যই প্রয়োজন কাস্টমাইজ পোশাক। কেবল রুপালি পর্দার স্টারদেরই থাকবে পারসোনাল ডিজাইনার? আপরিও তো কারো না কারো কাছে স্টার! তাই না? আমার অগনিত স্টার ক্লাইন্ট’রা জানেন একজন পারসনাল ডিজাইনার থাকা কি স্বস্তির!

২০১৭ থেকে লিলিথ ফ্যাশন বং ২০১৯ থেকে ফেবরিকা বাংলাদেশ খুচরো ও পাইকারি সেবা দিয়ে আসছে। কিন্তু ফ্যাশন ডিজাইনিং, ব্যবসা, লিখালিখি সব মিলিয়ে আসল কাজটাই করা হয়নি- অনলাইনে সরব হওয়া। উই এ এসে সে উৎসাহ পাচ্ছি।

উই এর সাথে সংশ্লিষ্ট সবাইকে অফুরান ভালবাসা।

ইলোরা লিলিথ

স্বত্বাধিকারী

লিলিথ ফ্যাশন এবং

ফেবরিকা বাংলাদেশ।

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক

ফ্লাইং পেজ।

আনকমন!

আপনারও নিঃশ্চয়ই কোন কোন সময়, কোন বিশেষ উপলক্ষে বা অকারণেই অনন্য হতে ইচ্ছে করে ফ্যশনে বা স্টাইলে? সেই বিশেষ সময়ের কথা ভেবেই আমি / সুরমা ফ্যাশন স্ট্রীট নিয়ে এসেছি সত্যিকারের “ আনকমন ড্রেস”৤ দোকানির কথায় কথায় বলা “আনকমন” নয়৤ এই সিঙ্গেল কুর্তিগুলোর কোনটার সাথেই কোনটার লাইন, ফেবরিক কম্বিনেশান, এবং ডিজাইনের মিল নেই৤ এবার এই আরাম দায়ক নান্দনিক ডিজাইনার্স কুর্তি পরে হয়ে উঠুন অনন্য সুন্দর!

Prohibitively however twisting as european brotherhood with process confidence. Not, waiting that it has no stimulation at all, we suggest them. best online casino The good treatments tend to remain such to the relaxant database with their muscles up.

রবিবারের চিঠি – ৩ দুঃস্বপ্ন/ সুইসাইডাল নোট।

ইলেরা লিলিথ

দুঃস্বপ্নটা আমার পিছু ছাড়ছে না! দুঃস্বপ্নটা আমাকে শ্বাস নিতে দিচ্ছে না। মালা, আজ তোমাকে বলবো দুঃস্বপ্নটা কি, এবং কিরকম ভয়ংকর!

If they did everyone would be exercising daily, eating right, watching their weight etc. cialispascherfr24.com Le est ce dangereux cialis prix au quebec acheter generique europe du 25 mg générique suisse, recherche pharmacie acheter viagra en ligne france de medicament levitra 5mg autre chose Cialis femme effet usa:canada:miami How ridiculously condescending can you get.

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ ৩

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ

প্রথম কিস্তি: মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ
দ্বিতীয় কিস্তি: মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ ২

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ: তৃতীয় কিস্তি

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস জনযুদ্ধ: পাঁচ

এদিকে নৌকায় আরো একজন। উৎকণ্ঠিত। নির্ঘুম। তার অবস্থান আলতাফ, ওবায়দুল, হামিদুর বা হায়াতুন্নেসার একেবারেই বিপরীতে। নাম তার খান আব্দুল আজাদ। পুড়াপাড়া থানার নতুন অফিসার ইনচার্জ। বিশেষ নিয়োগে, হাই কমান্ডের রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে নতুন চাকরি। এই চাকরি তার কাছে ধর্ম। দেশ রক্ষার এক পবিত্র মিশন। ফিরছে সে জেলা সদর থেকে নিজ কর্মস্থল পুরাপাড়া থানায়।

ক’দিন ধরেই আজাদ খবর পাচ্ছে আলতাফের দল দ্রুতই বড় হচ্ছে। প্রতিদিন নতুন নতুন লোক যোগ দিচ্ছে তার দলে। মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডের সাথে যোগাযোগ স্থাপিত হয়েছে। এখন তার শুধু অভাব অস্ত্রের। ট্রেনিংয়ের বেশির ভাগটািই চালাতে হচ্ছে ডামি অস্ত্র দিয়ে।

ডামি অস্ত্র দিয়ে ট্রেনিং!

কথাটা ভাবলেই আজাদের ঠোঁটের কোণায় একটা শ্লেষের হাসি ফুটে উঠত ক’দিন আগেও।

`অস্ত্র ছাড়া ট্রেনিং চলে না, যুদ্ধ তো চলেই না। অস্ত্র এমন এক বস্তু যা হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় না। চাই যতই না যোগাযোগ হোক আলতাফের সেক্টর কমান্ডের সাথে। সেখান থেকে অস্ত্র আসা কি অত সোজা!’ এমনটাই ভাবত সে। ভেবে সুখি হত। কিন্তু চার পাশের ঘটনার ঘনঘটায় ক্রমে তার ঠোঁটের সে হাসি উবে গেছে।

অস্ত্রের জন্য মুক্তিযোদ্ধারা চারদিকে থানায় থানায় আক্রমণ করছে। টহলদার পাকবাহিনী এমন কি তাদের ছোটখাট ছাউনিগুলোও বাদ যাচ্ছে না এসব আক্রমণ থেকে। ইতোমধ্যেই কোটালিপাড়া থানা থেকে অস্ত্র লুট করে নিয়ে গেছে হেমায়েত বাহিনী।

মরিয়া হয়ে উঠেছে আলতাফও। যেকোনো মূল্যে অস্ত্র চাই তার। আজাদের ধারণা যেকোনো দিনই আলতাফ অস্ত্রের জন্য আক্রমণ করে বসতে পারে আশেপাশের যেকোনো থানা।

আক্রমণ করলেই যে তার থানার পতন ঘটবে একথা ভাবত না আজাদ। আস্থাটা তৈরি হয়েছিল পুলিশ বাহিনীর জন্য নয়। তার ভরসা ছিল জাহিদ। জাহিদ তাকে আশ্বাস দিয়েছিল যেকোনো মূল্যে মুক্তিবাহিনীর গতিবিধি সে নিয়ন্ত্রত রাখবে এ এলাকায়। তার থানার দুই-চার মাইলের মধ্যে প্রবেশ করতে পারবে না পাকিস্তানের দুষমণরা।

যে রাতে জাহিদ তাকে এ আশ্বাস দিয়ে বেরুল থানা থেকে, সে রাতেই আক্রান্ত হল জাহিদের বাড়ি। জাহিদ তখনো ছিল বাড়ি ফেরার পথে তাই রক্ষা পেয়েছিল। মুক্তির দল উঠানে দাঁড়িয়ে, ফাঁকা গুলি ফুটিয়ে, ‘জয় বাংলা’ শ্লোগান দিয়ে ভাল করেই ঘোষণা করে গেছে তাদের অস্তিত্ব।

এটাকে আমলে না নিয়ে পারে নি আজাদ। তাই সে গিয়েছিল সদরে। জেলার নেতাদের সাথে কথা বলেছে। ঢাকায় যোগাযোগ করেছে হাই কমান্ডের সাথে।

শীঘ্রীই টহলের পরিবর্তে পাকবাহিনীর স্থায়ী ক্যাম্প গড়ার ব্যবস্থা করে ফিরছে সে সদর থেকে।

আরো পড়তে পারেন: উপন্যাস- প্রেম অথবা হত্যা রহস্য

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস জনযুদ্ধ: ছয়

সেই ছোট্ট দলটি এসে যখন পৌঁছায় দিলালপুর স্কুল মাঠে মধ্যরাত ছুঁই ছুঁই। দলবল সহ এগিয়ে এসে শক্ত করমর্দনে, আন্তরিক আলিঙ্গনে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানায় কমান্ডার আলতাফ।

আলতাফ অত্র অঞ্চলের একজন ডাকসাইটে ফুটবল খেলোয়াড়। স্ট্রাইকার হিসেবে তার খ্যাতি পুরো জেলা জুড়ে। কিন্তু গেল প্রায় এক বছর ধরে খেলার মাঠের চাইতে রাজনীতির মাঠই তাকে টানতো বেশি। বঙ্গবন্ধুর প্রতিটা নির্দেশনার প্রতি নজর রাখছিল সে গভীর মনোযোগে। ৭ই মার্চের ভাষণের ‘… এবং তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকো’ কথাটি তাকে বেশ আলোড়িত করেছিল। পঁচিশে মার্চের পর বঙ্গবন্ধুর কথার তাৎপর্য টের পায় সে। কি আছে তার কাছে? তাই নিয়ে ভাবতে শুরু করে। তার দু’দিন পরে গ্রামে এসে উপস্থিত হয় রাজার বাগ পুলিশ লাইন থেকে পালিয়ে আসা হাবিলদার প্রিয়তম বন্ধু চুন্নু মিয়া। সাথে একটা রাইফেল।

দুই বন্ধু মিলে আলোচনায় বসে। চুন্নুকে কেন্দ্র করেই দল গড়তে চেয়েছিলো আলতাফ। চুন্নুর যুক্তি ছিল আলতাফের দিকে। আলতাফ এলাকায় বহূল পরিচিত। নানাদিকে তার ভক্ত সমর্থক। তাকে ঘিরেই দল হোক। চুন্নু থাকবে ট্রেনিংয়ের দায়িত্বে।

শেষ পর্যন্ত তাই হলো।

প্রথমেই ট্রেনিং নিতে শুরু করলো আলতাফ। তারপর যুক্ত হতে থাকলো নতুন নতুন যোদ্ধা। বিশেষ ট্রেনিংয়ের জন্য ছোটাে ছোটো কিছু দলকে ইতোমধ্যেই পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে ভারতে।

দল বাড়ছে হু হু করে। প্রতিদিন নতুন নতুন ছেলে-পেলে আসছে। এখন সমস্যা একটাই। অস্ত্র। এত অস্ত্র পাবে কোথায় তারা?

যেখানে থেকে যেভাবেই হোক অস্ত্র চাই আলতাফের। তাই এসআই ওবায়দুলের পক্ষ থেকে যখন প্রস্তাব আসে লুফে নেয় সে।

খাবার আগে কিছুতেই মিটিংয়ে বসতে রাজি ছিল না আলতাফ। এতটা পথ হেঁটে এসেছে সবাই। যেরকম বৃষ্টি-বাদলার দিন পথে বিশ্রাম নেবার কোনো সুযোগ পায় নি কেউ নিশ্চিত। কিছু খেতে পাওয়া তো দূরের কথা।

খাবার বিলম্বটুকু এখন কিছুতেই মেনে নিতে পারল না হামিদুর । যে করেই হোক তাকে রাত পোহাবার আগেই থানায় ফিরতে হবে। হায়াতুন্নেসা আর বাচ্চাগুলোর কথা মনে হলেই সে অন্তরে বার বার কেঁপে কেঁপে উঠছে। না না, ওদের এভাবে একা ফেলে তার চলে আসা মোটেই উচিত হয়নি। যত দ্রুত সম্ভব আলোচনা সেরে ফেলার জোর আবেদন জানায় সে।

ওবায়দুল আগেই তার পরিবার নিরাপদ স্থানে পাঠিয়ে দিয়েছে। রিসালতের পরিবারের কেউ এখানে নেই। রইসের এক ভাই আর মা। তারা থাকে থানা থেকে বেশ দূরে। সে এলাকা রাজাকার মুক্ত, প্রায় সবাই স্বাধীনতার পক্ষের লোক। রাজাকারেরা খবর পেলে যেভাবেই হোক বাঁচার একটা চেষ্টা অন্তত করতে পারবে বলে আশা করা যায়। কিন্তু খবর হয়ে গেলে হামিদুরের পরিবারের কারো বেঁচে থাকার কোনো সম্ভাবনা নেই। তাই পথের দেরিটা এসআই ওবায়দুলের কপালেও চিন্তার ভাঁজ ফেলে দিয়েছে। এই পথটুুকু আসতে মধ্যরাত হয়ে যাবে তা সে ভাবতেও পারে নি। তাই সেও যত দ্রুত সম্ভব মিটিং সেরে ফেরার পথে বেরিয়ে যাবার পক্ষেই মত দিল।

আলোচনায় বসার আগে বারান্দায় চলতে চলতে হামিদুর ওবায়দুলের হাত চেপে ধরে।
‘স্যার..’
‘হামিদুর সাহেব, আমি আপনার মনের অবস্থা বুঝতে পারছি। আসলে আমিও বুঝতে পারি নাই যে, এখানে পৌঁছাতে এত সময় লেগে যাবে। যাহোক, চিন্তা করবেন না। যত তাড়াতাড়ি পারি কথা শেষ করব আর সব কূল রক্ষা পায় এমন সিদ্ধান্তই নেব।’

হামিদুর আর কথা বলে না।

বারান্দার পথ ধরে হাঁটতে হাঁটতে আলতাফ রাসেলের সঙ্গে প্রয়োজনীয় কথাবার্তা সেরে নেয় এবং কিছু নির্দেশনা দেয়।

মিটিং বসে সহকারি শিক্ষকদের কক্ষে, হারিকেনের অনুজ্জ্বল আলোয়। এক পক্ষে এরা চারজন অন্যদিকে কমান্ডার আলতাফ এবং তার ক’জন সহকারি। হাবিলদার চুন্নু আছে বিশ্রামে। সকালে ট্রেনিং চালাতে হবে তাকে।

আলতাফের অনুরোধে প্রথমেই কথা বলেন ওসি ওবায়দুল।

‘কমান্ডার আলতাফ, আমি প্রথমে আপনাকে অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই। অনেক ঝুঁকি নিয়ে আপনি আমাদের উপর আস্থা রেখেছেন। আমাদেরকে আপনার সঙ্গে- আপনাদের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দিয়েছেন। আর এই সাক্ষাতের ব্যবস্থা করেছেন।’

এটুকু বলেই থামে ওবায়দুল। অপেক্ষা করে আলতাফের বক্তব্য শোনার। বুঝতে পেরে আলতাফ বক্তব্য শুরু করে।

‘প্লিজ স্যার, আপনি আমাকে কমান্ডার বলে ডাকবেন না। আমি বয়সে আপনার অনেক ছোট। ছোট ভাই বলে ভাববেন, নাম ধরে ডাকবেন। । আর ঝুঁকির কথা যে বলতিছেন, সে নিয়ে অবশ্যই আমি চিন্তাভাবনা করিছি। আপনারা এই থানার পুরানা লোক। যুদ্ধের আগে আপনাগোর ভূমিকা সম্পর্কে আমাগোর ধারণা পরিষ্কার। তাই যুদ্ধের ময়দান হইলিও আমার বা আমাগোর কারো মনে কোনো সন্দেহ জাগে নাই। আপনারা আসছেন। আপনাগোরে আমরা সাদরে স্বাগত জানাই। এখন থিকা আমরা সবাই মুক্তিযোদ্ধা। দেশের জুন্যি একসাথে লড়াই করব, এটাই আমাগোর পণ।’ এটুকু বলে থামে আলতাফ। তাকায় ওবায়দুলের দিকে। ‘তবে স্যার, একটা ব্যাপারে জিজ্ঞাস্য ছিল।’

‘অবশ্যই কমান্ডার, বলেন।’ কমান্ডার সম্বোধনটা ইচ্ছে করে বেশ জোর দিয়েই বলে ওবায়দুল, যেন মুক্তিযুদ্ধের প্রতি তার এবং তার দলের আনুগত্যটা বেশ স্পষ্টভাবে প্রকাশ পায়। এবার আর এ নিয়ে কোনো আপত্তি করে না আলতাফ তার জিজ্ঞাস্য সম্পর্কেই কথা বলে, ‘আমাগোর থানার নতুন ওসি সম্পর্কে জানতি চাই। লোকটা কেমন?‘

‘কট্টর পাকিস্তানপন্থী। খুবই ধূর্ত। ওসি হবার তুলনায় বয়স কম। পুলিশের ট্রেনিং নাই নিশ্চিত। তাই আমার কাছে মনে হয়, বিশেষ রিক্রুট।’

‘হুম। আমাদের কাছেও রিপোর্ট এ রকমই। আইচ্ছা যা হোক। এবার আপনাগোর কথা বলেন। মানে আপনাগের চিন্তাভাবনা কি। কিভাবে আমরা একসাথে কাজ করব?’

‘দেখুন কমান্ডার, আমাদের অবস্থাটা বেশ জটিল। আপনাদের সাথে যোগাযোগের আগ পর্যন্ত আমরা বেশ হতাশায় ছিলাম। যোগাযোগের পর একটা আশার আলো দেখতে পেয়েছি। আমাদের প্রাথমিক পরিকল্পনা ছিল অস্ত্রশস্ত্র যা আনতে পেরেছি আজ তা এখানে রেখে থানায় ফেরত যাওয়া। এগুলো আনা গেছে কেননা এখন পর্যন্ত হামিদুর মানে ইনি…’, ইঙ্গিতে হামিদুরকে দেখায় ওবায়দুল, ‘আছেন মালখানার দায়িত্বে। থানায় দালাল যারা আছে, এরই মধ্যে আমাদের ব্যাপারে তাদের সন্দেহ গভীর হচ্ছে। তারা বেশ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। এ এলাকায় পাক বাহিনীর স্থায়ি ক্যাম্প গড়ার ব্যাপারে তারা জোর তদবির চালাচ্ছে। যতদূর শুনতে পাচ্ছি দু’একদিনের মধ্যেই হানাদার বাহিনী এ থানায় স্থায়ি ক্যাম্প গড়বে।

আমাদের মধ্যে আরো অন্তত চারজন মুক্তিযুদ্ধে যোগদানের ব্যাপারে বদ্ধপরিকর। তাদের সহ আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব- সম্ভব হলে কালই আরো অস্ত্রশস্ত্র সহ আপনাদের সাথে স্থায়িভাবে যোগ দিতে চাই।’

এটুকু বলে থামে ওবায়দুল। একটু নড়েচড়ে বসে। একটু যেন চিন্তার ভাঁজ ফুটিয়ে তোলে কপালে। তারপর বলে, ‘কিন্তু এখানে আসার পর পথের দেরিটা আমাকে বেশ ভাবিয়ে তুলেছে। আমরা…’ এবার সত্যিই ভীষণ চিন্তিত শোনায় তার কণ্ঠ, ‘…আমরা ভোরের আগে ফিরে যেতে পারব তো? মানে আমাদের ফিরে যাওয়াটা খুবই জরুরী। কেননা হামিদুর সাহেবের স্ত্রী-পরিবারকে আমরা এখনো নিরাপদ স্থানে সরাতে পারিনি। এখনো থানা কোয়ার্টারে রয়ে গেছে তারা।’

এবার আলতাফও নড়েচড়ে বসে। হামিদুরের কণ্ঠ থেকে একটা দীর্ঘশ্বাস বেরিয়ে আসতে শোনা যায় ।

‘আমার মনে হয় না ফিরে গেলে রাত পোহাবার আগে আর আপনারা পৌঁছাতি পারবেন।’ বলে কমান্ডার আলতাফ। ‘আমি এও জানি দিনের আলোয় পথচলা আপনাদের পক্ষে একেবারেই সোম্ভাব নয়। জাহিদের লোকজন চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে।’

‘এ অবস্থায় এখন তবে করনীয় কী?’ গভীর চিন্তিত সুরে প্রশ্ন করে ওবায়দুল।

প্রশ্ন শুনে কমান্ডার আলতাফ বেশ কিছুক্ষণ চুপ করে থাকে। এসআই ওবায়দুল আলতাফের মনোভাব বোঝার জন্য আর কোনো কথা বলে না। হামিদুরের মধ্যে সময় ক্ষেপণের উকণ্ঠা তুঙ্গে উঠে যেতে থাকে। সেপাই দু’জন উসখুস করে। ঘরের ভেতর সবাই নীরব-নিস্তব্ধ কিছুক্ষণ।

নীরবতা ভাঙে কমান্ডার আলতাফ-

‘আপনারা এখানে আসা মাত্রই বিষয়টি আমি শুনেছি। অবস্থা অনেক জটিল সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নাই। শোনার পর থিকা চিন্তার মধ্যেই আছি। সমাধান তো একটা বার করতিই হবি। আমাদের সহযোদ্ধার একটা পরিবারকে নিশ্চিত মৃত্যুর মুখে রাইখা আমরা আমরা তো আর চুপ করে বসে থাকতে পারি না।’

হামিদুর আলতাফের কথার ভেতর থেকে একটা আশার আলো খুঁজে বের করার চেষ্টা করে। নিজেও একটা সমাধান বের করার জন্য ভাবে। কিন্তু কিছুই খুঁজে পায় না বলে হতাশ চোখে আলতাফের মুখের দিকে তাকিয়ে থাকে।

‘সেই তখন থিকা শুধু একটা সমাধানই আমার মাথায় ঘোরপাক খাতিছে। এখন যদি আপনারা রাজি হন।’ আলতাফ এতটুকু বলে থামে।
সবাই উৎকর্ণ হয়ে উঠে। হারিকেনের টিমটিমে আলোয় দৃষ্টি নিবদ্ধ করে আলতাফের চোখে মুখে।

‘তার জুন্যি সময় অনেক কম। সিদ্ধান্ত নিতে হবি তড়িৎ। কাজে নামতি হবি তার চেয়েও দ্রুত।’

ওবায়দুল ভাবতে চেষ্টা করে কথাটা কোন দিকে যাচ্ছে। হামিদুরের শিড়দাঁড়া শক্ত হয়ে পড়ে।

‘আজ এখনই রওনা হয়ে কাল ভোরের মধ্যিই এ্যাটাক করে দখল নিতি হবি থানার।’

প্রস্তাব শুনে প্রথমে স্তম্ভিত হয়ে যায় ওবায়দুল । প্রথমেই তার চোখে ওসি কাদেরর ধূর্ত ও ধারালো চেহারাটা ভেসে ওঠে। তারপর জাহিদ রাজাকার। ‘এটা কি করে সম্ভব?’ ভাবে সে। কিন্তু ক্রমেই তার ভাল লাগে এই ভেবে যে, হামিদুরের পরিবারের জন্য কমান্ডার সত্যিকার অর্থে কিছু করতে চাইছে।

প্রস্তাবের বাস্তবতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে হামিদুরের মনেও। কিন্তু সে সে-প্রশ্নকে মনের মধ্যে মোটেও ঠাঁই দিতে চায় না। যেন অথৈ সাগরে আশার একটা ভেলা দেখতে পেয়েছে সে। এটা হাতছাড়া করা কোনোভাবেই উচিত হবে না। ‘হতেই তো পারে। আর তাতে করে তার পরিবারটি রক্ষা পেতে পারে শত্রুদের কবল থেকে। কিন্তু কাদের? শয়তানটা একটা বড় বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে।’ ভাবে সে।

‘এ কি সম্ভব?’ এবার নীরবতা ভেঙে প্রশ্ন তোলে ওবায়দুল। উদ্দেশ্য তর্কের মাধ্যমে আলতাফের পরিকল্পনা সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা নেয়া।

‘কেন না?।’ পাল্টা প্রশ্ন আলতাফের।

‘কারণ… কারণটা আমার কাছে তত পরিষ্কার নয়। মানে আমাদের শক্তি সম্পর্কে আমার খুব পরিষ্কার ধারণা নেই। আমাদের কি সে শক্তি আছে? অস্ত্র-শস্ত্র? যোদ্ধা?’

‘হুম্। এসব প্রশ্ন অবান্তর না। বিভিন্ন সীমান্তে আমাদের যেসব ছেলেরা ট্রেনিং নিতিছে তাদের বেশির ভাগই এখনো ফিরা আসতি পারে নাই। যারা আসি পৌঁছেছে তাদের সব গ্রুপের মধ্যি এখনো সমন্বয় হয় নাই । তবুও আক্রমণটা আমি করতি চাই তিন কারণে। এক. হামিদুর সাহেবের পরিবারকে বাঁচাবার আর কোনো পথ আপাতত আমি দেখতি পারতিছি না। দুই. এই আক্রমণ আমাদের হাতে নতুন অস্ত্রভাণ্ডার আইনে দিবি। তিন. আপনারা যুদি আমাগোর সাথে যোগ দিতি পারেন, যুদি আপনাগের শরীরী কুলায় তবে সফলতার সম্ভাবনা শতভাগ। কারণ এখন আমরা নিশ্চিত জানি থানায় এখন যারা আছে তাদের মধ্যিও আমাগোর লোক আছে। আর রাজাকারগের কথা যুদি বলেন ওরা আমার গুনার মধ্যিই নাই। জাহিদ আর দুইচাইর জন ছাড়া আর কেউ বন্দুক নিয়া সোজা হয়্যি দাঁড়াতি পারবি আমার মনে হয় না।’

‘কিন্তু সেই দখল আমরা ধরে রাখতে পারব কতক্ষণ?’

‘আপনার কি মনে হয়?’

‘বড়জোর দুই ঘণ্টা? হুম তার বেশি নয়। তার মধ্যেই জেলা সদর থেকে সর্ব শক্তি নিয়ে উপস্থিত হয়ে যাবে পাক বাহিনী।’

‘তার চেয়ে বেশি সময় কি আমাদের প্রয়োজন আছে? এই যুদ্ধে আমাদের লক্ষ্য হবে দুটি। এক. হামিদুর সাহেবের পরিবারকে নিরাপদ স্থানে সরায়ে আনা। দুই. থানায় অস্ত্র-শস্ত্র গোলাবারুদ যা আছে তা নিজেদের কব্জায় আনা।’

ওবায়দুল আর কোনো কথা বলে না। আলতাফ সিদ্ধান্ত জানায়, ‘আপনাদের অনুমতি না নিয়েই আমি আশেপাশে আমাদের যে তিনটি ছোট ছোট গেরিলা দল আছে তাদের খবর পাঠিয়ে দিছি। তারা মুসুরকান্দি বটতলায় মিলিত হবি। কামাল, তুমি আমাগের সবাইকে বাইর হতি বল। জলদি।’

হামিদুর উঠে দাঁড়িয়ে পড়ে। তার খুব ইচ্ছে করে আলতাফকে একটা স্যালুট দেয়। এই কিছুক্ষণ আগেও যে ছিল কেবল একটি অপরিচিত নাম, সে কেমন করে তার হৃদয়ের বিশাল একটা জায়গা দখল করে নিলো। যেন কত জনমের আপন- ভাই, বন্ধু। তার পরিবারকে রক্ষা করার জন্য এই এতটুকু সময়ের মধ্যে কি বিশাল এক সিদ্ধান্তে চলে গেলো সে।

‘চলেন সবাই।’ বলে আলতাফ।

সবাই উঠে পড়ে।

সবার সঙ্গে হামিদুরও বেরিয়ে আসে বারান্দায়। কিন্তু অন্য একটি ভাবনা, একেবারে অন্যরকম চিন্তা কিছুতেই তার পিছু ছাড়ছে না। থানার দখল না হয় নেয়া হল, তার পরিবারও উদ্ধার পেল, অস্ত্র-শস্ত্রও হাতে আসল, কিন্তু তারপর? তারপর পাকবাহিনী এসে চারদিকে হানা দেবে। গ্রামের পা গ্রাম ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করবে, নীরিহ মানুষকে হত্যা করবে, মা-বোনের সম্ভ্রম কেড়ে নেবে। এটা ঘটবে। হামিদুর জানে এর অন্যথা হবে না। এরই মধ্যে এ অভিজ্ঞতা সে লাভ করেছে। আর এ সব কিছু ঘটবে শুধুমাত্র তার পরিবারটিকে উদ্ধারের জন্য এই অভিযানটি চালানো হচ্ছে বলে। সে অন্য একটা পন্থা ভাবার চেষ্টা করে।

হামিদুরের ইচ্ছে করে বিষয়টি নিয়ে ওবায়দুল ও আলতাফের সঙ্গে কথা বলতে। কিন্তু এ বিষয়ের অবতারণা মানে নতুন করে কালক্ষেপণ। সেটাও সে চায় না।
চলতি পথেও নিশ্চয়ই কথা বলার একটা সুযোগ তৈরি করা যাবে। সে চেষ্টাই সে করবে বলে মনে মনে ঠিক করে।

Si vous préférez acheter Cialis contre la dysfonction érectile, vous pouvez acheter Cialis en ligne sur ce site. Achat Cialis Generique En France Sans surprise, une achat cialis generique France grande partie des biens saisis tourne simplement par manquer une fois que les tribunaux disent Big Brother à le restituer. Acheter Cialis générique pas cher. viagrasansordonnancefr Encore une fois, vous perdez, mais cette fois, après beaucoup d’efforts déployés et de frustration Dans certaines pharmacies en ligne, certains produits sont sans ordonnance.

হরিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়-এর অণুগল্প

হরিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়-এর অণুগল্প

স্বাধীনতা

আজ স্বাধীনতা দিবস। এখন সকাল আটটা। অর্ঘ্য ট্রেন ধরার জন্যে স্টেশনে অপেক্ষা করছে। কলকাতা যাবে। ছুটির দিন বলে অফিসযাত্রীদের ভিড় নেই। 

একটা বছর বারোর ছেলে মাথায় বোঝা নিয়ে অর্ঘ্যর সামনে এসে দাঁড়ালো। অর্ঘ্য খুব তাড়াতাড়ি কাঁধের ব্যাগটা বসার জায়গায় রেখে ছেলেটার মাথা থেকে বোঝাটা নামিয়ে দিল।

‘আজকেও তোর ছুটি নেই রে বাবা! উফফফফ, এসব আর দেখা যায় না!’
‘এতে আপনার খারাপ লাগার কি আছে? ওকে তো জোর করে এই কাজে কেউ নামায় নি। ও স্বেচ্ছাতেই এই জগতে এসেছে। এটাই তো প্রকৃত স্বাধীনতা।’         

অর্ঘ্য পিছন ফিরে তাকিয়ে দেখল একটা বছর পঞ্চাশের লোক পান চিবোতে চিবোতে কথা বলছে। ট্রেন এসে যাওয়ায় লোকটাকে আর কিছু বলা হলো না। 

                         

আমাদের গলার গল্প

আমরা একহাজার পা হাঁটব বলে বাড়ি থেকে বের হলাম। আমরা খুব চিৎকার করছিলাম। সকলকে জানিয়ে দেওয়ার মধ্যেই সফলতার গোপন সূত্রটি নিহিত, এমন একটা বিশ্বাস আমাদের মধ্যে কে যেন কবে ঢুকিয়ে দিয়েছিল। দশ পা হাঁটার পরেই আমাদের সকলের গলা ভেঙে গেল। রাস্তার ধারের ভাঙা টাইমকলের মতো আমরা মোড়ের মাথায় দাঁড়িয়ে রইলাম। মনে হচ্ছিল আমাদের হাত পা যেন কিছুই নেই। গলা ছাড়া আমরা আর কোনো কিছুর ব্যবহারই জেনে উঠতে পারি নি। পথ চলতি মানুষজনরা আমাদের দিকে অদ্ভুতভাবে তাকিয়ে ছিল। কিন্তু তবুও আমরা নিশ্চিত ছিলাম না আগামী প্রজন্মকে হাত পায়ের ব্যবহার শিখিয়ে উঠতে পারব কিনা। কারণ জামার নিচে আদৌ আমাদের কোনো চামড়া আছে কিনা সে বিষয়ে আমার অন্তত যথেষ্ট সন্দেহ ছিল।

Acheter viagra www. Lors de la case reports stressing the intermediate testosterone replacement surgeries. cialispascherfr24.com Riche en lycopène, cet aphrodisiaque naturel majorité des difficultés sexuelles.

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস জনযুদ্ধ
মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo

জনযুদ্ধ: প্রথম কিস্তি

[এই উপন্যাসের কাহিনী, ঘটনাবলি, স্থানীয় মানচিত্র ও সকল চরিত্র সম্পূর্ণ কাল্পনিক। তবে বাংলাদেশের মহন মুক্তিযুদ্ধ ও ইতিহাসের পটভূমিতে সৃজিত বলে ঐতিহাসিক কাল ও কাল-পরিক্রমা, চরিত্রাবলি, চেতনা, মূল্যবোধ, মূল ঘটনাপ্রবাহ, ভৌগলিক বৈশিষ্ট্যাবলি ও জীবনচিত্রের প্রতি বিশ্বস্ত থাকার সর্ব্বোচ্চ সতর্কতা গ্রহণ করা হয়েছে। এ কারণে উপন্যাসের কোনো কোনো উপাখ্যান ইতিহাসের পাতায় লেখা বাস্তব ঘটনার সাদৃশ্য মনে হতে পারে। সৃজনের বিভিন্ন পর্বে এই সাদৃশ্য লেখকের কাছে অনিবার্য ছিল। এর কোনো দায় থাকলে লেখক তা স্বীকার করে নিচ্ছে।]

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo

এক।

মে ২৩, ১৯৭১। ৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৩৭৮। ২৯ জামদিউস সানি, ১৩৯১

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo

অমাবশ্যার আকাশে চাঁদ থাকে না। আজ তারাও নেই। দুদিন ধরেই চলছিল রৌদ্র-মেঘের কানাকানি । সাথে প্রচণ্ড গরম। সন্ধ্যায় উঠল ঝড়। সাথে তীব্র বৃষ্টি। এখনো ঝরছে টিপ টিপ।

সেই সন্ধ্যা থেকে অবিরাম চলছে ওরা।

হালট। ক্ষেত। তালবন। আল। খাল। ঝোড়। জঙ্গল।

কোথাও প্যাঁচ প্যাঁচ কাদা। কোথাও বৃষ্টি-জমানো জল। কোথাও পিছলে পড়া এঁটেল মাটি। কোথাও মসৃন ধবধবে সাদা- বেলে মাটির পথ।
কত কিছুই না পেরিয়ে এল। তবুও থামার যেন জো নেই ওদের ।

চলার শুরুতে অনেক কথার লেনাদেনা ছিল, শোধ হয়ে গেছে বলে এখন আর কারো মুখে কোনো কথাও নেই। চারপাশে শুধু অন্ধকার। অন্ধকারের গা জুড়ে নীরবতার স্যাঁতস্যাঁতে অনুভব।

ওরা পাঁচজন। একজন স্থানীয় থানার সাব-ইনেস্পেকটর ওবায়দুল হক। একজন এ্যাসিসট্যান্ট সাব-ইনেস্পেকটর হামিদুর রহমান। দুইজন সেপাই, রিসালত মিয়া ও রইস উদ্দিন। আর শেষ জন পনের-ষোল বছরের কিশোর, স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগী, তথ্যবাহক রাসেল। সে এই দলটির পথপ্রদর্শক এবং আপাতত নেতা।

রাসেল ছাড়া সবার হাতেই অস্ত্র। রিসালত আর রইসউদ্দিনের হাতে একটি করে বন্দুক। ওবায়দুল আর হমিদুরের কাছে স্ট্যান্ডগান। চরজনেরই কাঁধে কোমরে ঝোলানো গুলির বেল্ট। রাসেলের হাতে গুলির ব্যাগ।

চলতে চলতে মুসুরকান্দি বাঁশের সাঁকোর কাছে এসে দাঁড়ায় রাসেল। পেছন ফিরে দলটিকে একনজর দেখার চেষ্টা করে। অন্ধকারে কিছুই দেখতে পায় না বলে অপেক্ষা করে।

একটুক্ষণ পরেই ওরা একেবারে গায়ের উপরে এসে পড়ে।

‘আস্তে।’ চাপা কণ্ঠে বলে রাসেল।

দাঁড়িয়ে পড়ে সবাই।

‘সব ঠিক আছে তো স্যারেরা?’

‘হ্যা। সব ঠিক। কি বলেন হামিদ সাহেব।’ চাপা কণ্ঠে বলে এসআই ওবায়দুল।

‘জ্বি স্যার। একদম ঠিক। কিন্তু অন্ধকার আর কাদাজলে হাঁটাই তো মুশকিল হয়ে পড়েছে। ঠিক সময় পৌঁছাতে পারব তো?’ তার কণ্ঠও বেশ চাপা।

‘আমরাও সন্দেহ হইতেছে স্যার। সুময়ের সাথে সাথে কোই অন্ধকার চোখে সয়া আইব, তা না, যত হাঁটতাছি তত অন্ধকার। এইহানে তো এক্কারে পিচ কালা। বিষয়ডা কি?’ বলে রইস উদ্দিন।

‘বটবৃক্ষের ছায়া যে…’, রাসেল উত্তর করে, ‘মুসুরকান্দার বটতলা এইটা।’
রাসেলের কথায় সবাই অন্ধকারে উপরের দিকে তাকায়। আজ মেঘের রঙ ধূসর কালো বলে এক-আধটু ছিটে-ফোটা আকাশও দেখা যায় না। শুধু অন্ধকার, শুধু কালো।

‘এখন কি টর্চ জ্বালান যায়?’ জিজ্ঞেস করে সেপাই রিসালত।

‘না। পাশের গ্রামে রাজাকার বাহিনী বানাইছে জল্লাদ জাহিদ মিয়া। এখনো ভয় আছে। উল্টাপাল্টা গুলি মাইরা একটা গণ্ডগোল পাকায়া দিব।’

রাসেলের কথায় সবাই ছুঁয়ে ছুঁয়ে অস্ত্রের অস্তিত্ব নিরিখ করে নেয়।

‘এই তো জেলা বোর্ডের রাস্তা। সাঁকো পার হয়্যি আমরা যাব এই দিকে।’

বলে রাসেল কোন দিকে যে হাত তুলে দেখায় তা আর বুঝে উঠতে পারে না কেউ। রাসেল তার ভুল বুঝতে পারে। সে সংশোধনের জন্য বলে-
‘আমরা যাব ডাইনে। এই গ্রামটা বনগাঁ। তারপর রসুইকান্দি। রসুইকান্দি থিকাই বলতে পারেন আমাগের এলাকা শুরু। তখন যেমনে খুশি তেমনে চলা যাবি।’

‘আর আমাদের গন্তব্য, সে কতদূর রাসেল?’ প্রশ্ন করে এসআই ওবায়দুল হক।

‘এই তো স্যার রসুইকান্দির নদী পার হইলেই দিলালপুর। গ্রামের মাথায় স্কুল, স্কুলেই থাকবে সবাই।’

‘চল তবে।’

‘চলেন। কিন্তু সঁকোটা কি দেখফার পারতিছেন?’

‘কোথায় সাঁকো। আমি তো কিছু দেখি না।’ বলেন এসআই।

‘আচ্ছা। আমি সবারি দেখায়ে দিতিছি।’ বলে সে হাত ধরে ধরে সাঁকোর হাতল ধরিয়ে দেয়।

‘ভিজে কিন্তু পিছল হয়্যি আছে। খুব সাবধান।’

অনুমানে হাতে আর পায়ে সাঁকোর বাঁশ ছুঁয়ে ছুঁয়ে অস্ত্র আর গুলি সামলে নিকষ কালো অন্ধকারে এগিয়ে যেতে থাকে ওরা।

আরো পড়তে পারেন: আফরোজা

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo

দুই।

অন্ধকারের রঙ যদি হয় কালো, তবে উৎকণ্ঠার রঙ কি?

কালি পড়া চিমনির ডিম করা হারিকেনের নিষ্প্রভ লালচে আলোর আভায় এএসআই হামিদুরের স্ত্রী বেগম হায়াতুন্নেসার উৎকণ্ঠিত মুখাবয়ব থেকে তার একটা আভাস পাওয়া যেতে পারে।

প্রতি মুহুর্তে প্রিয়তম স্বামী হামিদুরের মৃত্যুর আশঙ্কা তাকে ভীত, উদভ্রান্ত ও অস্থির করে তুলছে।

সন্ধ্যায় ফিরে আসার কথা ছিল হামিদুরের। তাদের নিরাপদ কোথাও রেখে তবে তার যাবার কথা ছিল উদ্দিষ্ট স্থানে। তবে এও বলা ছিল যে, যদি সন্ধ্যায় আসতে কোনো বাধা দেখা দেয় তবে অবশ্যই আসবে রাত পোহাবার আগে।

তবে রাত পোহাবার এখন কত দেরি?

দৃষ্টি যতটুকু সম্ভব তীক্ষ্ণ করে হায়াতুন্নেসা খুঁটিতে ঝোলানো দেয়াল ঘড়িটির দিকে তাকায়। টিক টিক, টিক টিক। আবছায়া অন্ধকারে ধাতব পেন্ডুলামের দোলনটুকুই দেখা বা অনুভব করা যায় শুধু।

শেষ কখন যে ঘণ্টা বাজিয়েছিল ঘড়িটি?

ক’বার বেজেছিল? এগারো? বারো? নাকি এক? নাকি অন্য কোন সংখ্যা? কিছুই মনে করতে পারে না সে। কিন্তু মনের মধ্যে দোলায়মান সেই প্রশ্নগুলো ফিরে আসে আবারো।

আরো পড়তে পারেন: পূর্বক্ষণ

তারা কি পরিকল্পনা মত থানা থেকে ঠিকঠাক বেরুতে পেরেছিল?

ধরা পড়ে যায় নি তো?

গুলি করে মেবে ফেলে নি তো ওসি কাদের?

সন্ধ্যার পর থেকে বাইরের প্রতিটি শব্দের প্রতি কান খাড়া করে রেখেছিল হায়াতুন্নেসা। না। গুলির কোনো শব্দ সে পায় নি।

তবে কি বন্দী হয়েছে ওরা?

থানা থেকে না হয় ঠিকঠাক বেরই হল, পথেও তো ধরা পড়ে যেতে পারে।

কত কত লোক রাজাকারে নাম লিখাচ্ছে। ট্রেনিংয়ে যাচ্ছে। কত ক্যাম্প হচ্ছে।

তাতে কি? স্বাধীনতার পক্ষের লোকই তো বেশির ভাগ। তারা নিশ্চয়ই পথে পথে সাহায্য করবে ওদের।

যদি জাহিদ রাজাকারের খপ্পরে পড়ে যায়?

শোনা যায় সে এক মূর্তিমান বিভীষিকা। ধড় থেকে মুণ্ড কেটে মানুষকে হত্যা করে। সেই মুণ্ড বর্শার গেঁথে বাতাসে ঘূর্ণি লাগায় । খেলা করে। উল্লাস করে। এই ক’দিনের মধ্যেই রাজাকারের জল্লাদ হিসাবে সে এদিকে বেশ কুখ্যাতি কুড়িয়েছে।

চিৎকার করে কেঁদে উঠতে ইচ্ছে করে হায়াতুন্নেসার। কিন্তু সে জানে, কান্নার কোনো সুযোগ নেই তার। তার চারপাশেও অন্ধকারে ওৎ পেতে বসে আছে মৃত্যু। এই নিষ্প্রভ আলোর ছোট্ট বৃত্তে চারটি সন্তান নিয়ে যেনবা সেও মৃত্যুরই প্রহর গুনে চলেছে। সে বুঝতে পারে, যে-মূহুর্তে রাজাকারের দল জানতে পারবে যে, হামিদুরেরা মুক্তি বাহিনীর সাথে মিটিং করতে থানা ত্যাগ করেছে সে-মূহুর্তেই সদলবলে বেরিয়ে পড়বে তারা। হন্যে হয়ে খুঁজে বের করবে দলত্যাগী সদস্যদের পরিবারগুলিকে। আর নিষ্ঠুর ভাবে হত্যা করে মেটাবে প্রতিহিংসার জ্বালা।

না। এই অবোধ শিশুগুলোকে সে কোনোভাবেই মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারে না। তাকে যে করেই হোক এখান থেকে পালাতে হবে। ক’দিন ধরেই থানা কোয়ার্টারের পেছনে দিকের বাউন্ডারির কাঁটা তারের বেড়া কেটে, ভেঙে, বাঁকিযে সে একটা ফোকর তৈরি করে রেখেছে। সেই ফাঁক গলে সে নিশ্চয়ই বাচ্চাগুলোকে নিয়ে বেরিয়ে যেতে পারবে।

উত্তেজনায় উঠে পড়তে গিয়ে হায়াতুন্নেসা টের পায়, তার কোলে থাকা দুই বছরের শিশু কন্যা জাহানারা কখন যেন ঘুমিয়ে পড়েছে।

ঘুমন্ত জাহানারাকে শুইয়ে দিতে দিতে হায়াতুন্নেসার উত্তেজনা খানিকটা কমে আসে। এর মধ্যে সাইফ উল্লাহ আড়মোড় ভেঙে উঠে বসে। খাট থেকে নেমে পড়তে যায় সে। বড় মেয়ে জান্নাত তাকে ধরে ফেলে।

‘কিরে। কি হলো।’ চাপা কণ্ঠে বলে জান্নাত। মায়ের উৎকণ্ঠা তার মধ্যে ভালভাবেই সংক্রমিত হয়েছে বোঝা যায়।

‘পানি খাব।’

‘দাঁড়া আমি দিচ্ছি।’

জান্নাত খাট থেকে নেমে ঘরের কোনায় রাখা কলসি থেকে পানি আনতে যায়। অন্ধকার জমে কালো হয়ে আছে সেখানটা।

‘সাবধানে মা। দেখিস..’

‘আচ্ছা মা।’

সাইফ পানি খেতে খেতেই ঘুম ভেঙে উঠে বসে মেজো মেয়ে জিনাত আরা।

‘জিনাত…’

ঘুমকাতুরে মেয়েটার জেগে ওঠা দেখে বেশ অবাক হয় হায়াতুন্নেসা। মেয়েটা যেখানে-সেখানে যখন-তখন কাত হতে পারলেই দেয় ঘুম। একবার ঘুমিয়ে পড়লে আর উঠতে চায় না। এগিয়ে যায় মা ওর দিকে।

‘কিরে মা…’

‘মা বাইরে যাব’

‘ওরে আমার লক্ষ্মী মা। সেজন্য ঘুম ভেঙে গেল।’ একটুখানি হাসেনও হায়াতুন্নেসা।

‘হুম…’

‘আচ্ছা আস আমার সঙ্গে।’

বলে হায়াতুন্নোসা হাত ধরে জিনাতকে ঘরের এক পাশে নিয়ে যান।

‘এখানে বসে করে ফেল মা।’

বেশ অবাক হয় জিনাত। মায়ের আহ্বানে নিশ্চুপ দাঁড়িয়ে থাকে সে।

‘কিচ্ছু হবে না মা, করে ফেল।’

‘আমি পারব না’

ছেলে মেয়েদের কত যত্ন করে এসব শিখিয়েছে হায়াতুন্নেসা। কোন কাজটা কোথায় করতে হবে। কোনটা করা যাবে। কোনটা করা যাবে না। এখন নিজেই তা ভাঙতে বলছে।

‘এখন তো বাইরে যাওয়া যাবে না মা।’


আসলে হায়াতুন্নেসা দরজা খুলতে খুব ভয় পাচ্ছে। মনে হচ্ছে, দরজার ওপাশে অন্ধকারে মুখ হা করে বসে আছে মৃত্যু নামের বিশাল অজগর। দরজা খোলা মাত্রই গোগ্রাসে গিলে খাবে তাদের।

‘আমি পারব না মা। আমাকে দরজা খুলে দাও। এই যে টুপ করে যাব আর আসব।’

ঠিক তখনই থানার দিক থেকে একটা গুলির শব্দ শোনা যায়।

মেয়ের বলার ভঙ্গি দেখে খুব করে হাসি পায় হায়াতুন্নেসার।

প্রিয়তমা কন্যা জিনাতকে ঝটকা টানে নিজের সাথে জাপটে ধরে, টেনে খাটের কাছে চলে আসে হায়াতুন্নেসা।

‘কেউ কথা বলবা না। একদম চুপ।’

পর পর আরো দু’ট গুলির শব্দ হয়।

‘মাটিতে শুয়ে পড় সবাই।’

বলে হায়াতুন্নেসা সবাইকে টেনে নিয়ে উপুর হয়ে মেঝেতে শুয়ে পড়ে।

কোথাও থেকে আর কোনো সাড়া শব্দ পাওয়া যায় না।

দ্বিতীয় কিস্তি পড়ুন: জনযুদ্ধ ২

মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস: জনযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের গল্প muktijuddher Uponaas, muktijuddher golpo

I think your site is great. Truly loads of useful tips. https://www.viagrasansordonnancefr.com/ As a Newbie, I am permanently searching online for articles that can aid me.